২০ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

পুুঁজিবাজারে বড় মূলধনী কোম্পানির প্রাধান্য


অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ টানা দ্বিতীয় দিনের মতো দেশের পুঁজিবাজারে সূচকের উর্ধগতি দিয়ে লেনদেন শেষ হয়েছে। লভ্যাংশ ঘোষণার সময় ঘনিয়ে আসায় অপেক্ষাকৃত শক্ত বা ভাল মৌলের কোম্পানিগুলোর দর বাড়ার কারণে প্রধান বাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক সূচকটি কিছুটা বেড়েছে। যদিও আগের দিনের চেয়ে সেখানে বেশিরভাগ কোম্পানিরই দর কমেছে। তবে বড় মূলধনী কোম্পানি ও বহুজাতিক কোম্পানিগুলোর আগ্রহ বাড়ার দিনে ডিএসইর লেনদেন আট কার্যদিবস পরে তিনশ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। একইভাবে দেশের অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও সব ধরনের সূচকের সঙ্গে লেনদেন বেড়েছে। সিএসইতে ২৬ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, সোমবার ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে ৬৯ কোটি টাকার বা ২৮ শতাংশ। দিনটিতে ডিএসইতে মোট ৩১৫ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছিল। আগের দিন এ বাজারে লেনদেন হয়েছিল ২৪৫ কোটি ৩৮ লাখ টাকার শেয়ার। এদিন ডিএসইতে মোট লেনদেনে অংশ নেয় ৩১১টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১২৬টি, কমেছে ১৪৪টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪১টি শেয়ারের দর।

বাজার বিশ্লেষকরা মনে করছেন, ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বহুজাতিক কোম্পানিগুলোর লভ্যাংশ ঘোষণার সময় ঘনিয়ে আসার কারণে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বেড়েছে। বিশেষ করে যেসব কোম্পানি লভ্যাংশ ঘোষণা দেয় সেগুলোর দিকে বিনিয়োগকারীরা বেশি ঝুঁকছেন। তারা বলেন, এটি বাজারের জন্য শুভ লক্ষণ। কারণ দীর্ঘমেয়াদে ভাল মৌলের শেয়ারের সঙ্গে থাকলে বাজার স্থিতিশীল আচরণ করবে।

সকালে সূচকের বড় ধরনের ইতিবাচক প্রবণতা দিয়ে লেনদেন শুরুর পরে দিনটিতে ডিএসইর সার্বিক সূচক বা ডিএসইএক্স সূচক ৬ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৪ হাজার ৮০৮ পয়েন্টে। ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ৭ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ১৪৩ পয়েন্টে। ডিএস ৩০ সূচক ৯ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে এক হাজার ৭৯৭ পয়েন্টে।

ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষে থাকা দশ কোম্পানি হচ্ছে : স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি, এসিআই, ইফাদ অটোস, লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট, শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, হাইডেলবার্গ সিমেন্ট, এমজেএলবিডি এবং আইডিএলসি ফিন্যান্স।

দর বৃদ্ধির সেরা কোম্পানিগুলো হলো : অলটেক্স, উসমানিয়া গ্লাস, ডেল্টা লাইফ, মিথুন নিটিং, প্রিমিয়ার ইন্স্যুরেন্স, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি লিমিটেড, ন্যাশনাল টিউবস, রহিম টেক্সটাইল, ১ম আইসিবি ও জেএমআই সিরিঞ্জ।

দর হারানোর সেরা কোম্পানিগুলো হলো : ইমাম বাটন, সমতা লেদার, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং এ্যান্ড ফাইন্যান্স, প্রগ্রেসিভ লাইফ, ৭ম আইসিবি, ইউনাইটেড ফাইন্যান্স, ইবিএল ১ম মিউচ্যুয়াল ফান্ড, ইফাদ অটোস, সি এ্যান্ড এ টেক্সটাইল ও ফারইস্ট ফাইন্যান্স।

এদিকে ঢাকার বাজারে সব ধরনের সূচক বাড়লেও দেশের অপর বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সূচকের মিশ্রাবস্থা দেখা গেছে। সেখানেও বড় মূলধনী কিছু কোম্পানির দর বেড়েছে, যার কারণে বেশিরভাগ কোম্পানির দরপতন ও সূচকের বড় ধরনের পতন ঘটেনি। এদিন সিএসই সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৮ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ৬৮৫ পয়েন্টে। সিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৩৫টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৭৯টি, কমেছে ১১৯টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৭টির। সিএসইতে দিনটিতে মোট ২৬ কোটি টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের লেনদেন হয়েছে। আগের দিন সেখানে মোট ২২ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছিল।

সিএসইর লেনদেনের সেরা কোম্পানিগুলো হলো : ফার কেমিক্যাল, বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি লিমিটেড, স্কয়ার ফার্মা, বেক্সিমকো, শাহজিবাজার পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড, ইফাদ অটোস, গ্রামীণফোন, অলটেক্স ও লাফার্জ সুরমা সিমেন্ট।