২৪ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৫ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

চিলেকোঠার কোণে হোমস


চিলেকোঠার কোণে হোমস

‘শার্লক হোমসের’ পরিচিতি আর নতুন করে বলে দেয়ার দরকার নেই। নতুন খবর হলো এই সিরিজের হারিয়ে যাওয়া বইয়ের একটি কপি পুনরায় পাওয়া গেছে। স্কটিশ লেখক ও সে দেশের প্রখ্যাত চিকিৎসক স্যার আর্থার কোনান ডোয়েলের লেখা বিশ্বখ্যাত গোয়েন্দা কাহিনীর একটি কপি প্রায় এক শ’ বছর আগে হারিয়ে গিয়েছিল। ১৯০৪ সালে ‘বুক ও দ্য ব্রিজ’ শিরোনামের এই বইটি লেখেন কোনান ডোয়েল। সম্প্রতি ওয়াল্টার এলিয়ট নামে এক লোক তার ঘরের পুরাতন বইয়ের স্তুূপের মধ্যে কপিটি খুঁজে পান। তারপর চারদিকে হৈচৈ পড়ে গেছে।

৪৮ পাতার এই বইটিতে মোট ১৩শ’ শব্দ ররেছে। ১৯০২ সালে স্কটল্যান্ডের সেলক্রিকে প্রচ- বন্যা হয়। এ বন্যায় একটি কাঠের ব্রিজ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ১৯০৪ সালে সেতুটি নতুন করে গড়ার জন্য স্থানীয় বাসিন্দারা তিন দিনের এক কর্মসূচীর আয়োজন করেন। যার অংশ হিসেবে স্থানীয়দের লেখা ছোট গল্পের একটি সঙ্কলন বাজারে বিক্রি করা হয়। যাতে সেই অর্থ দিয়ে সেতুটি তৈরি করা সম্ভব হয়। সে সময় সেলক্রিকে প্রায়ই ঘুরতে আসতেন কোনান ডোয়েল। সেতু তৈরি করার জন্য স্থানীয় বাসিন্দাদের এমন পরিকল্পনার কথা জানতে পেরে ১৩০০ শব্দের একটি ছোট গল্প লিখে ফেলেন তিনি। ওয়াটসনকে সঙ্গে নিয়ে শার্লক হোমস সেলক্রিকে বেড়াতে আসছেন এই ছিল সেই ছোট গল্পের মূল বিষয়বস্তু। সেই ছোট গল্পটিই জায়গা পায় সেলক্রিকের বাসিন্দাদের লেখা ছোট গল্পের সঙ্কলনে। গোটা সেই গল্প সঙ্কলনটি রবিবার থেকে ক্রস ক্রিজ সেলক্রিক পপ-আপ কমিউনিটি মিউজিয়ামে সাধারণ মানুষকে দেখানো হচ্ছে। কিন্তু এত বছর বাদে ওয়াল্টার এলিয়ট নামের এই সাবেক কাঠুরিয়া যদি তাঁর বইয়ের স্তুূপ থেকে কপিটি খুঁজে না পেতেন, তা হলে শার্লক হোমস ভক্তরা হয়ত এই বইটির স্বাদ থেকে বঞ্চিত হতেন। এলিয়ট বলেন, বইটির এক কপি প্রায় পঞ্চাশ বছর আগে তাঁকে এক বন্ধু উপহার দিয়েছিলেন। সযতেœ সেই বই তখন তুলে রেখেছিলেন তিনি। সম্প্রতি হঠাৎই এক দিন অন্য কাগজপত্র খুঁজতে গিয়ে বেরিয়ে পড়ে ডোয়েলের অমর সৃষ্টির একটি অংশ।

বাদামি কাগজে মোড়া দশ ইঞ্চি লম্বা এবং তিন ইঞ্চি চওড়া বইটির বর্তমান বাজার মূল্য সম্পর্কে কিছুই বলতে পারছেন না এই ৮০ বছর বয়সী বৃদ্ধ। ভাগ্যিস এত বছর ধরে এলিয়টের বাড়ির চিলেকোঠার কোণের এই বইয়ের স্তুূপের মধ্যে পড়ে ছিল কোনান ডোয়েলের শার্লক হোমস। না হলে তো ডোয়েলের হাজারো ভক্ত জানতেই পারতেন না এই অপ্রকাশিত বইয়ের কথা। তবে তখন এই বইয়ের ঠিক কত কপি বিক্রি হয়েছিল এবং সেতু মেরামতে কত টাকা যোগাড় করা সম্ভব হয়েছিল তা এখন গবেষণার বিষয় বলে জানালেন সাবেক এলিয়ট। বিবিসি ও ডেইলি মেইল অবলম্বনে নাজিম মাহমুদ।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: