২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৭ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

স্যাম টেইলর জনসনের রেকর্ড!


স্বর্গের সিঁড়ি ভেঙে যেমন তরতর করে উঠে যাওয়া যায়, তেমনি আঁস্তাকুড়ে নিজেকে নামিয়ে আনতেও সময় লাগে না। কিন্তু স্বল্প সময়ের মধ্যেই সেই আঁস্তাকুড় থেকে যদি সাফল্যের সঙ্গে নিজেকে আবারও স্বর্গের সিঁড়িতে তুলে নেয়া যায়, তাহলে সেটাই সাফল্য। হ্যাঁ পাঠক, বলছিলাম বর্তমান সময়ে হলিউডের সবচেয়ে সফল মানুষ স্যাম টেইলর-জনসনের কথা। যাঁর কিনা এখন একাদশে বৃহস্পতি। সম্প্রতি বিশ্বজুড়ে পালিত হলো বিশ্ব ভালবাসা দিবস। আর এই বিশ্ব ভালবাসা দিবস উপলক্ষে হলিউডে মুক্তি পেল এ বছরের সেরা ছবি ‘ফিফটি শেডস অব গ্রে’। মুক্তির পর থেকেই হলিউডজুড়ে ব্যাপক সাড়া তৈরি করেছে। এখন পর্যন্ত যে ক’জন নারী নির্মাতা হলিউডে ছবি পরিচালনা করেছেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম হলেন স্যাম টেইলর-জনসন। স্যামের ছবি মুক্তি পাওয়ার আগ পর্যন্ত হলিউডে নারী নির্মাতাদের মধ্যে সফল নির্মাতা ছিলেন টুয়েলাইট ছবির পরিচালক ক্যাথেরিন হার্ডউইক। যিনি কিনা ২০০৮ সালে নিজের ছবি মুক্তির প্রথম দিন প্রায় সত্তর মিলিয়ন ডলার আয় করে বক্স অফিসে রেকর্ড গড়েছিলেন। কিন্তু ছয় বছর পর তাঁর সেই রেকর্ডকে নিজের করে নিয়েছেন স্যাম। গত ১৩ ফেব্রুয়ারি নিজের দ্বিতীয় ছবি ‘ফিফটি শেডস অব গ্রে’ এর মুক্তির প্রথম দিন স্যাম আয় করেন নব্বই মিলিয়ন ডলার। সেজন্য বলা হয় স্যাম হলিউডে নারী নির্মাতাদের হয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন।

কি আছে এই চলচ্চিত্রে? যার জন্য চলচ্চিত্রটি হলিউডে ইতিহাস সৃষ্টি করলেন। এই প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে স্যাম বলেই ফেললেন যে, ‘আমি জানতাম ছবিটি কিছু একটা করে দেখাবে। আজ আমার সেই ভাবনাটা সত্যি প্রমাণিত হলো। আসলে ছবিটি মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল গত বছরের আগস্ট মাসে কিন্তু নানা পরিকল্পনা করে দেখলাম যে ছবিটিকে যদি বিশ্ব ভালবাসা দিবস উপলক্ষে মুক্তি দেয়া হয় তাহলে হয়ত এটি বাস্তবিক অর্থে সফল হবে। তাই তখন মুক্তি না দিয়ে এখন মুক্তি দেয়া হলো। আর চলচ্চিত্রটির প্রসঙ্গে বলব, ‘ফিফটি শেডস অব গ্রে’ রোমান্টিক একটি ছবি। তাই এই ছবিতে প্রচুর রোমান্টিকতা আছে কিন্তু এর পাশাপাশি আছে পর্নোগ্রাফির বিরুদ্ধে নানা রকম সচেতনতামূলক সংলাপ ও শট। ছবির গল্পটি মূলত ব্রিটিশ সাহিত্যিক ই. এল. জেমস এর ‘নোবেল অব দ্যা সেম নেম’ বই থেকেই নেয়া হয়েছে কিন্তু নির্মাণের সময় আমি নিজের কিছু ভাবনা এখানে ব্যবহার করেছি বর্তমান সময়কে কেন্দ্র করে। তাই ছবিটি যেমন রোমান্টিক ঠিক তেমনি যৌন সচেতনতামূলক। আর বিশ্ব ভালবাসা দিবসে এমন ছবির মুক্তি হয়েছে বলেই দর্শকরা তা লুফে নিয়েছে। তাই আমি নিজেকে স্বার্থক মনে করছি এবং সেই সঙ্গে নিজের কালো অতীতকেও মনে হয় দূরে ঠেলে দিতে সক্ষম হয়েছি।’

১২৫ মিনিটের ‘ফিফটি শেডস অব গ্রে’ প্রথম মুক্তি পায় ১১ ফেব্রুয়ারি ৬৫তম বার্লিন ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভালে। তারপর ১৩ ফেব্রুয়ারি আমেরিকাজুড়ে মুক্তি পায়। মাত্র ৪০ মিলিয়ন ডলারে তৈরি এই ছবি প্রথম সপ্তাহেই আয় করে প্রায় ২৭০ মিলিয়ন ডলার। যা হলিউডে অনুপ্রেরণার দারুণ এক উদাহরণ হয়ে থাকবে নারী পরিচালকদের জন্য। ঠিক যেমন করে স্যাম নিজের সোনালি চুলের রং বদলিয়ে সকালের সূর্যোদয়ের লালচে আভা ধারণ করেছেন। কারণ সূর্যোদয় তো নতুন দিনের শুরুর ও প্রতীক বটে।

নাজমুল আহমেদ তন্ময়