২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

একজন মহিলা দেশকে জিম্মি করে রেখেছেন ॥ মুহিত


অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ একজন মহিলা (খালেদা জিয়া) দেশকে জিম্মি করে রেখেছেন বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেছেন, হরতাল-অবরোধসহ চলমান সহিংসতা পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার দায়ও বিএনপির।

সোমবার বিকেলে সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন অর্থমন্ত্রী। এর আগে সচিবালয়ে বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল আরবিট্রেশন সেন্টার-এর প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেন অর্থমন্ত্রী। তিনি বলেন, একজন মহিলা দেশকে জিম্মি করে রেখেছেন। তিনি দেশের মানুষকে ভোগান্তিতে ফেলেছেন। এভাবে দেশ চলতে পারে না, তাই চলমান পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার দায় বিএনপির। আর বিএনপি জানে কীভাবে দেশ স্বাভাবিক করতে হবে। অর্থমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে হরতাল-অবরোধ সহিংসতার ঘোষণা প্রত্যাহার করার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, প্লিজ উইড্রো করুন, এটি ডিজাস্টার। জেলা পর্যায় অর্থনৈতিকভাবে ডিসফাংশনাল কিনা জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, নো ডিসফাংশনাল। তবে যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যাহত হওয়ার কারণে ক্রাইসিস তৈরি হয়েছে। চলমান সহিংসতায় যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যাহত হচ্ছে উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, সবজি বিক্রেতারা পথে বসে গেছে। তবে দেশের পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। রাস্তায় যানজট দেখা যাচ্ছে। এখনও পুরো ফ্রি হয়নি। সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, চলমান হরতাল-অবরোধে দেশের অর্থনীতির কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা এ মাসের শেষের দিকে হিসাব-নিকাশ করা হবে।

চলমান পরিস্থিতির কারণে পোশাক শিল্পের মালিকরা সরকারের কাছে বিভিন্ন সুবিধা চাইতে পারে-সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, পোশাক শিল্প তেমন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে না। তাদের উৎপাদন ও রফতানি অব্যাহত রয়েছে। তবে পোশাক শিল্প মালিকদের সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে তাদের ইমেজ। বর্তমান পরিস্থিতিতে তাদের ইমেজ নষ্ট হচ্ছে।

নাগরিক সমাজের সংলাপের উদ্যোগ প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের পাল্টা প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে বলেন, আপনি কি কিছু ফিল করেন? সংলাপের কতটুকু দরকার বলে মনে করছেন। আমি মনে করি, সংলাপের কোন দরকার নেই। গ্রামীণ ব্যাংক প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, যে নয়জন সদস্যের মেয়াদ শেষ হয়েছে, তাঁদের বাদে বাকি চারজন দিয়েই গ্রামীণ ব্যাংকের পর্ষদ চলবে। নতুন নয়জন নির্বাচিত হবেন ভোটের মাধ্যমে।