২১ নভেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৫ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

তবু মালিঙ্গাকে নিয়ে আশাবাদী মুরালি


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ইনজুরির কারণে ছয় মাস মাঠের বাইরে ছিলেন শ্রীলঙ্কান পেসার লাসিথ মালিঙ্গা। চোট কাটিয়ে বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই খেলতে নামেন তিনি। তবে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে নিজের সেরাটা দিতে পারেননি তিনি। শনিবার ১০ ওভার বল করে প্রতিপক্ষকে উপহার দিয়েছেন ৮৪ রান। আর লঙ্কান এই পেসারের দুঃসময়ে পাশে দাঁড়িয়েছেন দেশটির সাবেক কিংবদন্তি বোলার মুত্তিয়া মুরালিধরণ। এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলে (আইসিসি) এক সাক্ষাতকারে মুরালিধরণ বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দশ ওভারে ৮৪ রান দিয়ে কোন উইকেটের দেখা না পাওয়া মালিঙ্গার বোলিং ফিগার দেখতে খুবই ভয়ঙ্কর মনে হচ্ছে। কিন্তু তারপরও ইনজুরি থেকে মুক্তি পেয়ে মাঠে নামতে পের সে উপকৃত হয়েছে।’ ২০০১ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলে দেন মুত্তিয়া মুরালিধরণ। তবে তার আগেই অসামান্য কীর্তি গড়ে নিজেকে নিয়ে যান অনন্য উচ্চতায়। একদিনের ক্রিকেটে ৫৩৪ উইকেট নেয়ার পাশাপাশি টেস্টে তার দখলে রয়েছে ৮০০ উইকেট। যে কারণে বোলিংয়ে যে তিনি বেশ সিদ্ধহস্ত সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। যে কারণেই লাসিথ মালিঙ্গার ওপর মুরালিধরণের আস্থাটা একটু বেশি। গত সেপ্টেম্বরে গোড়ালির ইনজুরিতে পড়েছিল মালিঙ্গা। সার্জারির পর দীর্ঘ ছয় মাস ক্রিকেট খেলা থেকে বিরত ছিলেন তিনি। যে কারণে মুত্তিয়া মুরালিধরণ মনে করেন এই বাস্তবতাটাকেও সবার মেনে নিতে হবে। এ বিষয়ে তার অভিমত হলো, ‘মোটের ওপর তার প্রতি আমাদের বাস্তববাদী হতে হবে। গত সেপ্টেম্বরে গোড়ালির চোট পেয়েছিল সে। আর সেই সার্জারির পর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেই প্রথম ম্যাচ খেলেছে সে। তাই তার সেরাটা দিতে হলে কিছু সময়ের প্রয়োজন। আমি মনে করি আফগানিস্তান ও বাংলাদেশের বিপক্ষে পরের দুই ম্যাচে তার কাছ থেকে আরও বেশি কিছু পাবে শ্রীলঙ্কা।’ একদিনের ক্রিকেটে মালিঙ্গার দখলে রয়েছে ২৭১ উইকেট। ২০০৭ বিশ্বকাপে চমকপ্রদ পারফর্মেন্স উপহার দিয়েছিলেন মালিঙ্গা। সেবার ১৫.৭৭ গড়ে ১৮ উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। শুধু তাই নয়, একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৪ বলে ৪ উইকেট নেয়ার অসামান্য কীর্তিও গড়েছিলেন তিনি। আর সেই বিশ্বকাপে তার নজরকাড়া পারফর্মেন্সের সৌজন্যেই রানার্সআপ হয়েছিল সিংহলীরা। শনিবার প্রথমে ব্যাট করে ৩৩১ রান করেছিল স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড। বিনিময়ে ৬ উইকেট হারিয়েছিল ব্ল্যাক ক্যাপসরা। আর জবাবে মাত্র ২৩৩ রানেই গুটিয়ে যায় লঙ্কানদের ইনিংস। যেখানে সর্বোচ্চ ৬৫ রান আসে লাহিরু থিরিমান্নের ব্যাট থেকে। শ্রীলঙ্কার এই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানও লাসিথ মালিঙ্গার পারফর্মেন্স নিয়ে আশাবাদী। তার বিশ্বাস কয়েক ম্যাচ খেললেই নিজের সেরা সময়ে ফিরে পাবেন মালিঙ্গা। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি না এটা মালিঙ্গার সর্বোচ্চ বোলিং প্রচেষ্টা। আমাদের বিশ্বাস আগামী কয়েক ম্যাচের মধ্যেই সে তার ভয়ঙ্কর রূপ ফিরে পাবে। তবে আমি মনে করি ডেথ ওভারে সে সত্যিই খুব ভাল বল করেছে। আর আমাদের জন্য এটাই ইতিবাচক দিক। তাই আশা করি সে দ্রুতই ভাল পারফর্মেন্স নিয়ে ফিরবে।’

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: