২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

বিশ্বকাপে প্রথম সেঞ্চুরি এ্যারন ফিঞ্চের


জিএম মোস্তফা ॥ ২০১৫ বিশ্বকাপে প্রথম সেঞ্চুরির দেখা পেলেন এ্যারন ফিঞ্চ। শনিবার নিজেদের প্রথম ম্যাচে শক্তিশালী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১৩৫ রানের ঝলমলে এক ইনিংস উপহার দেন তিনি। আর ইংলিশদের বিপক্ষে তাঁর সেঞ্চুরির সৌজন্যেই বড় সংগ্রহ গড়ে অস্ট্রেলিয়া।

অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড যৌথভাবে একাদশতম বিশ্বকাপের আয়োজক। আর প্রথম দিনেই মাঠে নামে স্বাগতিকরা। মেলবোর্নের ক্রিকেট গ্রাউন্ডে (এমসিজি) ইংল্যান্ডের বিপক্ষে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতে নামেন এ্যারন ফিঞ্চ। তাঁর সঙ্গে ছিলেন হার্ডহিটার ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার। ইংলিশদের প্রথম ওভারে বল করতে আসেন জেমস এ্যান্ডারসন। আর প্রথম ওভারের পঞ্চম বলেই এ্যারন ফিঞ্চকে আউট করার সুযোগ পেয়েছিলেন ক্রিস ওকস। কিন্তু তা করতে ব্যর্থ হয়। এর ফলে তার মাসুলও দিতে হয় ইংল্যান্ডকে। ৩৭তম ওভারের তৃতীয় বলে ইয়ন মরগান রান আউট করলেও তার আগে সর্বোচ্চ ১৩৫ রানের ঝলমলে ইনিংস উপহার দিয়ে যান ফিঞ্চ। আর বিশ্বকাপে এ্যারন ফিঞ্চের অসাধারণ সেঞ্চুরির সৌজন্যেই ইংল্যান্ডকে রেকর্ড ৩৪২ রানের টার্গেট ছুড়ে দিতে সক্ষম হয় জর্জ বেইলির দল। ইংলিশদের বিপক্ষে এ্যারন ফিঞ্চের ১৩৫ রান অস্ট্রেলিয়ান কোন ব্যাটসম্যানের পঞ্চম সর্বোচ্চ। শুধু তাই নয়। এই বিশ্বকাপেই ২৮ বছর বয়সী এ্যারন ফিঞ্চের অভিষেক ঘটে। আর নিজের বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই শতরানের অসাধারণ এক ইনিংস খেলেন তিনি। অস্ট্রেলিয়ার চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে অভিষেকেই সেঞ্চুরির মাইলফলক স্পর্শ করেন। তার আগে যারা অভিষেক বিশ্বকাপেই শতরান করতে সক্ষম হয়েছিলেন তাঁরা হলেন ট্রেভর চ্যাপেল, জিওফ মার্শ এবং এ্যান্ড্রু সাইমন্ডস। আর সামগ্রিকভাবে বিশ্বের ১৪তম ব্যাটসম্যান হিসেবে অভিষেকেই সেঞ্চুরির দেখা পান ফিঞ্চ। তার আগে সর্বশেষ সেঞ্চুরি করেছিলেন ভারতের তরুণ প্রতিভাবান ক্রিকেটার বিরাট কোহলি। ২০১১ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচে শতরানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলেছিলেন তিনি। এবারের বিশ্বকাপেও ভারতের বড় ভরসার নাম এই বিরাট কোহলি। নিজেদের মাটিতে অস্ট্রেলিয়ার দ্বিতীয় ক্রিকেটার হিসেবে বিশ্বকাপে শতকের দেখা পেলেন ফিঞ্চ। তার আগে ঘরের মাঠের সমর্থকদের সামনে সেঞ্চুরি করেছিলেন ডেভিড বুন। ১৯৯২ বিশ্বকাপে এই মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে শতরান করেছিলেন তিনি। উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ডেভিড ওয়ার্নারের সঙ্গে ৫৭ রানের জুটি গড়েন ফিঞ্চ। কিন্তু দ্বিতীয় এবং তৃতীয় উইকেট জুটিতে ফিঞ্চকে সঙ্গ দিতে একেবারেই ব্যর্থ হন শেন ওয়াটসন ও স্টিভেন স্মিথ। তবে চতুর্থ উইকেট জুটিতে জমে উঠে অস্ট্রেলিয়ার। জর্জ বেইলির সঙ্গে ১৪৬ রানের জুটি গড়েন ফিঞ্চ, যা বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। এর আগে চতুর্থ উইকেট জুটিতে সর্বোচ্চ ২০৪ রানের ইনিংস খেলেছিলেন মাইকেল ক্লার্ক এবং ব্র্যাড হজ। ২০০৭ বিশ্বকাপে হল্যান্ডের বিপক্ষে সেই ইনিংসটিই এখনও চতুর্থ উইকেট জুটিতে সর্বোচ্চ। বিশ্বকাপে ইংলিশদের বিপক্ষে এখন ফিঞ্চের ১৩৫ রানই ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ইনিংস। তার আগে ২০০৭ বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ৮৬ রানের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ইনিংস খেলেছিলেন সাবেক অধিনায়ক রিকি পন্টিং। ইংলিশদের বিপক্ষে মাত্র ১২ ইনিংস খেলেই তিনটি সেঞ্চুরি পূর্ণ করেছেন, যা অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যান হিসেবে দ্বিতীয়। ৩৮ ইনিংসে পাঁচ সেঞ্চুরি করে তার উপরে কেবল রিকি পন্টিংই।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: