২৪ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

নীলফামারীতে আয়কর বিভাগের কম্পিউটার অপারেটর খুন


স্টাফ রিপোর্টার, নীলফামারী ॥ নতুন কর্মস্থলে যোগদান করা হলো না আয়কর অফিসের কম্পিউটার অপারেটর আখতারুজ্জামানের (২৭)। একদল দুর্বৃত্ত ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে। শুক্রবার রাতে ঘটনাটি ঘটে নীলফামারীর জলঢাকা-ডালিয়া সড়কের কাকড়া বাজার ডবল ব্রিজ নামক স্থানে। হত্যার শিকার আখতারুজ্জামান নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার খালিশা চাপানি ইউনিয়নের ডালিয়া তালতলা গ্রামের সহিদুল ইসলাম শেফার পুত্র। অভিযোগ উঠেছে, আখতারুজ্জামানের পিতা স্থানীয় আওয়ামী লীগ সমর্থক হওয়ায় তার পুত্রকে জামায়াত- শিবির পরিকল্পিতভাবে হত্যা করতে পারে। শনিবার লাশের ময়নাতদন্ত করা হয় জেলার মর্গে।

পারিবারিক ও পুলিশ সুত্র মতে, আখতারুজ্জামান কম্পিউটার অপারেটর হিসেবে পঞ্চগড় জেলার আয়কর অফিসে কর্মরত ছিলেন। সম্প্রতি তার বদলি হয় দিনাজপুর জেলার পার্ব্বতীপুর উপজেলা অফিসে। পঞ্চগড় থেকে রিলিজ ও সকলের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে শুক্রবার বিকেলে মোটরসাইকেলযোগে বাড়ি ফিরছিল। রবিবার তার নতুন কর্মস্থলে যোগদানের কথা ছিল। কিন্তু পঞ্চগড় থেকে আসার পথে শুক্রবার সন্ধ্যার পর সে নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলা হয়ে ডিমলা উপজেলার ডালিয়া তালতলা গ্রামের বাড়িতে ফিরছিল। রাত আটটা দিকে জলঢাকা-ডালিয়া সড়কের কাকড়া বাজার ডবল ব্রিজ নামক স্থানে পৌঁছলে একদল মুখোশধারী দুর্বৃত্ত তার পথরোধ করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে তার মোটরসাইকেলটি নিয়ে পালিয়ে যায়। এক পথচারী বিষয়টি ডিমলা থানা পুলিশকে জানায়। পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থল গিয়ে তার লাশ উদ্ধার করে। পারিবারের অভিযোগ, ঘটনাস্থলে প্রতিদিন রাতে ওই সড়কে পুলিশ টহল থাকলেও ওইদিন রাতে পুলিশের টহল ছিল না। তবে শনিবার সকালে পুলিশ ঘটনাস্থলের ৫০০ গজ দূরের একটি ভুট্টা ক্ষেতের পাশ থেকে আখতারুজ্জামানে ব্যবহৃত এ্যাপাসি ১৫০সিসি মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করে। হত্যার শিকার আখতারুজ্জামানের পিতা স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মী সহিদুল ইসলাম শেফার অভিযোগ- পরিকল্পিতভাবে জামায়াত-শিবির তার পুত্রকে হত্যা করেছে বলে তার ধারণা।