২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

সহিংসতায় ব্রিটিশ হাইকমিশনারের উদ্বেগ


স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশে চলমান রাজনৈতিক সহিংসতা ও প্রাণহানিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার রবার্ট গিবসন। একইসঙ্গে এসব সহিংস ঘটনার তদন্তও চেয়েছেন তিনি। বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ উদ্বেগ প্রকাশ করেন ব্রিটিশ হাইকমিশনার। এদিকে পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হকের সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন ঢাকায় নবনিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেনস ব্লুম বার্নিকাট।

বিবৃতিতে রবার্ট গিবসন বলেন, গত এক মাসের মধ্যে রাজনৈতিক সহিংসতায় অর্ধশতাধিক প্রাণহানি, কয়েকশ’ লোকের বীভৎসভাবে আহত হওয়ার ঘটনায় আমি স্তম্ভিত। তিনি বলেন, সহিংসতার কারণে অনেক শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবনে বিরূপ প্রভাব পড়ছে, অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এটা বাংলাদেশের উন্নয়ন ও স্থিতিশীলতার ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। কুমিল্লায় যাত্রীবাহী বাসে পেট্রোলবোমা হামলায় আটজনের মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়ে সকল পক্ষকে এ ধরনের সহিংসতা ঘটানো বা এতে উস্কানি দেয়া থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান ব্রিটিশ হাইকমিশনার। তিনি বলেন, যুক্তরাজ্য বরাবরের মতো এবারও উভয় পক্ষকে সহনশীলতার পরিচয় ও আইনের শাসনের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের আহ্বান জানাচ্ছে। একইসঙ্গে এ সহিংসতা নিরসনে এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছে।

পররাষ্ট্র সচিবের সঙ্গে মার্কিন রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাত ॥ বাংলাদেশে নবনিযুক্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেনস ব্লুম বার্নিকাট বৃহস্পতিবার পররাষ্ট্র সচিব এম শহীদুল হকের সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সচিবের সঙ্গে সাক্ষাতকালে বাংলাদেশের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র একযোগে কাজ করে যাবে বলে জানিয়েছেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, পররাষ্ট্র সচিবের সঙ্গে সংক্ষিপ্ত বৈঠককালে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট জানান বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার। এছাড়া বাংলাদেশের সকল উন্নয়নে পাশে থাকবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এর আগে বুধবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদের কাছে তার পরিচয়পত্র পেশ করেন। সে সময় তিনি যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের শক্তিশালী সম্পর্কের ওপর জোর দেন। উল্লেখ্য, রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেনস ব্লুম বার্নিকাট গত ২৫ জানুয়ারি ঢাকায় এসেছেন। এর আগে তিন বছর দায়িত্ব পালনের পর ঢাকা থেকে বিদায় নেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডাব্লিউ মজেনা।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: