২৪ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ফখরুল-রিজভীকে ডিবি অফিসে মুখোমুখি করা হচ্ছে


শংকর কুমার দে ॥ পেট্রোলবোমার সহিংস সন্ত্রাসী তৎপরতার নীলনকশা উদ্ঘাটন করতে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) অফিসে মুখোমুখি করা হচ্ছে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফকরুল ইসলাম আলমগীর ও যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীকে। সরকারের পতন ঘটানোর জন্য পেট্রোলবোমার সহিংস সন্ত্রাসী তৎপরতা চালিয়ে নিরীহ নিরপরাধ মানুষজনকে হত্যা ও চিরতরে পঙ্গু করার বিষয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সনের মুখপাত্র হিসেবে তারা নির্দেশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। আদালত থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড পেয়ে শনিবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে গাজীপুর হাইসিকিউরিটি কারাগার থেকে মিন্টো রোডের গোয়েন্দা কার্যালয়ে আনা হয়েছে মির্জা ফখরুল ইসলামকে। রুহুল কবির রিজভী গ্রেফতার অবস্থায় হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যাওয়ার পর গাড়িতে অগ্নিসংযোগের মামলায় আবার শুক্রবার গভীর রাতে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হয়ে বাড্ডা থানায় হস্তান্তর প্রক্রিয়ায় ডিবি অফিসে আনা হচ্ছে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য। বিএনপির এই দুই নেতাকে ডিবি অফিসে মুখোমুখি করে অবরোধের নামে চলমান পেট্রোলবোমার আগুনে পুড়িয়ে মারার সহিংস সন্ত্রাসী তৎপরতার উৎস, উস্কানিদাতা, অর্থের যোগানদাতাসহ নীলনকশার সম্পর্কে জানতে চাওয়া হবে। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সূত্রে এ খবর জানা গেছে।

সূত্র জানায়, বর্তমানে রিমান্ডে ডিবি কার্যালয়ে রয়েছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম। সেখানে নিয়ে আসা হচ্ছে রুহুল কবির রিজভীকে। অবরোধের নামে চলমান সহিংস সন্ত্রাসী তৎপরতার বিরোধী দলের নীলনকশা কী? কারা সহিংসতা করছে? দেশী ও বিদেশী কোন কোন মহল সহায়তা করছে? অর্থের যোগানদাতা কারা? মদদ পাচ্ছে কিভাবে? বেগম খালেদা জিয়ার বর্তমান ভূমিকার পেছনে দেশের ও বিদেশের কাদের কাছ থেকে মদদ পাচ্ছেন? পেট্রোলবোমার সহিংস সন্ত্রাসী তৎপরতার বিষয়ে দুই নেতাকে পৃথকভাবে ও মুখোমুখি করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

সূত্র জানায়, শনিবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে গাজীপুর হাইসিকিউরিটি কারাগার থেকে মিন্টো রোডের গোয়েন্দা কার্যালয়ে আনা হয়েছে মির্জা ফখরুল ইসলামকে। তাকে ঢাকার ডিবি কার্যালয়ে নেয়া হয়েছে পল্টন থানায় দায়ের করা মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য। মির্জা ফখরুলকে ২৮ ডিসেম্বর পল্টন মোড়ে ককটেল বিস্ফোরণ ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একটি গাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় গত মঙ্গলবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। শনিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে নেয়া হয়েছে রুহুল কবির রিজভীকে। গভীর রাতে রাজধানীর বারিধারার একটি বাসা থেকে রিজভীকে গ্রেফতারের পর বাড্ডা থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে র‌্যাব। শনিবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তাকে বাড্ডা থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করার পর অবরোধের মধ্যে গাড়িতে অগ্নিসংযোগের একটি মামলায় জিজ্ঞাসাবাদ করবে ডিবি। গত সোমবার বাড্ডা-গুলশান সংযোগ সড়কে বাসে আগুন দেয়ার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় রুহুল কবির রিজভীর নাম রয়েছে। রাত পৌনে ৩টার দিকে বারিধারার একটি বাড়ি থেকে রিজভীকে আটক করে র‌্যাব। তাকে আটক করার আগে ‘অজ্ঞাত স্থান থেকে’ নিয়মিত বিবৃতি পাঠিয়ে হরতাল-অবরোধের ঘোষণা দিয়ে আসছিলেন।