২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট পূর্বের ঘন্টায়  
Login   Register        
ADS

মানুষ পুড়িয়ে হত্যার ॥ প্রতিবাদে সমাবেশ মানববন্ধন


জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ বিএনপি-জামায়াতের সহিংসতা ও মানুষ পুড়িয়ে হত্যার প্রতিবাদে নেত্রকোনা, নীলফামারী, বরিশাল ও রাজবাড়ীতে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। খবর স্টাফ রিপোর্টার ও নিজস্ব সংবাদদাতাদের।

নেত্রকোনা ॥ রাজনীতির নামে বিএনপি-জামায়াত জোটের সহিংসতার প্রতিবাদে রবিবার নেত্রকোনার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনের সড়কে বিশাল মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। স্থানীয় চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ, মহিলা পরিষদ, মানবাধিকার সংরক্ষণ পরিষদ, নারী মোর্চা, জনমোর্চা ও সুশাসনের জন্য প্রচারাভিযানসহ কয়েকটি সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও ব্যবসায়ী সংগঠন পৃথকভাবে এ কর্মসূচীর আয়োজন করে।

নীলফামারী ॥ অরাজক, অবরুদ্ধ, সহিংস পরিস্থিতি থেকে দেশ ও জীবন রক্ষা, জঙ্গীবাদ নির্মূল ও গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষার দাবিতে সৈয়দপুরে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন ও গণসঙ্গীত পরিবেশন করা হয়েছে। রবিবার সৈয়দপুর প্রেসক্লাবের সামনে বেলা ১২টায় সৈয়দপুরের উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, ছাত্র ইউনিয়ন, যুব ইউনিয়ন, ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র, খেলাঘর আসর, বাংলাদেশ কৃষক সমিতি ও বাংলাদেশ ক্ষেতমজুর সমিতি যৌথভাবে এ কর্মসূচী পালন করে।

বরিশাল ॥ অবরোধের নামে সারাদেশে সহিংসতা বন্ধ ও গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রাকে সুগম করতে সকল রাজনৈতিক দলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বরিশাল রিপোর্টার্স ইউনিটির নেতৃবৃন্দ। শনিবার রাতে সংগঠনের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তারা সাম্প্রতিক সময়ে রাজনৈতিক কর্মসূচীর নামে সহিংসতা, জানমালের ক্ষতিসাধন এবং দমন-পীড়নের মাধ্যমে হয়রানি বন্ধের দাবি করেন। রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি নজরুল বিশ্বাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেনÑ সাধারণ সম্পাদক বাপ্পী মজুমদার, সিনিয়র সদস্য আনিসুর রহমান স্বপন, সুশান্ত ঘোষ, কামাল মাসুদুর রহমান, মাসুক কামাল, গাজী শাহরিয়াজ, মর্জিনা বেগম, মিথুন সাহা, আরিফুল ইসলাম, রেহমান আনিচ প্রমুখ।

রাজবাড়ী ॥ রবিবার বিকেলে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট রাজবাড়ী জেলা শাখার উদ্যোগে এক মানববন্ধন কর্মসূচী পলিত হয়। স্থানীয় শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি চত্বরে ২ ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধনে জাতীয় মহিলা সংস্থা, ’৭১-এর ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি, অরনি সাংস্কৃতিক গোষ্ঠী, জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপ, রেলওয়ে শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদ, রেলওয়ে শ্রমিক লীগ, রিক্সা শ্রমিক লীগ এতে অংশ নেয়।