১৭ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা মাশরাফিদের


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশন মঙ্গলবার বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলকে শুভেচ্ছা জানাতে নৈশভোজের আয়োজন করে। সেখানে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটার ও বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনসহ কর্মকর্তারাও উপস্থিত থাকেন। বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও ক্রিকেটারদের শুভেচ্ছা জানান। ক্রিকেটার ও কর্মকর্তা গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর আমন্ত্রণে নৈশভোজে অংশ নেন। সেখানেই বাংলাদেশ দলকে প্রধানমন্ত্রী শুভেচ্ছা জানান। শুভেচ্ছায় বাংলাদেশ দলের সাফল্য কামনা করেন প্রধানমন্ত্রী।

শনিবার রাতে অস্ট্রেলিয়ার পথে উড়াল দেবে বাংলাদেশ দল। এর আগে বুধবারই শেষবারের মতো দেশের মাটিতে প্রস্তুতি সেরে নেয় মাশরাফিবাহিনী। আজ ফটোসেশন আর কোচ-অধিনায়কের আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনের মধ্য দিয়ে দেশে বিশ্বকাপের আগে ক্রিকেটারদের মাঠে প্রবেশের দিনও ফুরাবে। এরপর এক দিনের বিশ্রাম নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার উদ্দেশে যাত্রা করবে দল। এই যাত্রায় মাশরাফি বিন মর্তুজার দলের সঙ্গী হয়ে থাকবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শুভেচ্ছা, শুভকামনা। সঙ্গে থাকছে যে দেশে খেলতে যাবে বাংলাদেশ, সেই অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের মধ্যে ঢাকায় অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনেরও শুভকামনা। অস্ট্রেলিয়া দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার রাতে ক্রিকেটারদের আমন্ত্রণ জানিয়ে শুভেচ্ছা জানায় হাইকমিশন।

ঢাকায় নিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ার হাইকমিশনার ক্রেইগ উইলকক বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডে এবার বিশ্বকাপ ক্রিকেট হবে। সেই বিশ্বকাপে খেলবে বাংলাদেশও। দলের জন্য আমার শুভকামনা রইল।’ বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘আমার বিশ্বাস দল এবার অনেকদূর যাবে। এবারের দলটি যে কোন সময়ের চেয়ে ভাল মনে হচ্ছে। এবারই সুযোগ ভাল কিছু করে দেখানোর।’ ১৯৯৯, ২০০৩, ২০০৭ ও ২০১১ সালের বিশ্বকাপে খেলেছে বাংলাদেশ। কিন্তু ২০০৭ সালে একবারই দ্বিতীয় পর্বে খেলতে পেরেছে বাংলাদেশ। বিসিবি পরিচালক, শেখ জামাল ধানম-ি ক্লাবের সভাপতি মনজুর কাদেরের আশা, ‘বাংলাদেশ এবারও দ্বিতীয় পর্বে খেলবে।’ বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা আজ বিশ্বকাপ নিয়ে নিজের, নিজেদের পরিকল্পনার কথা জানাবেন। দল কতদূর যেতে পারে, সেই আশার কথা বলবেন। তবে এর আগে অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনে নৈশভোজ শেষে বলেছেন, ‘আমাদের প্রস্তুতি অনেক ভাল হয়েছে। যা যা করা দরকার করছি। অস্ট্রেলিয়ায় গিয়ে তিন সপ্তাহ প্রস্তুতির মধ্যে থাকব। কন্ডিশন, উইকেট; সবকিছুই বুঝব। দল কতদূর এগিয়ে যেতে পারবে, এ নিয়ে তখন ভালভাবেই বুঝব।’

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: