২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

হজে গিয়ে কারাগারে বাকৃবির ইমাম ও কর্মকর্তা


বাকৃবি সংবাদদাতা ॥ হজ পালন করতে গিয়ে অবৈধভাবে সোনার বার বহনের কারণে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) ফজলুল হক হলের সিনিয়র পেশ ইমামসহ এক কর্মকর্তা দু’মাস ধরে সৌদি আরবের কারাগারে আছেন বলে জানা গেছে। তারা গত ৩১ অক্টোবর থেকে এখনও পর্যন্ত সৌদি আরবের কারাগারে আছেন বলে নিশ্চিত করেছে তাদের হজ এজেন্সি আলতাব ট্যুর এ্যান্ড ট্রাভেলস।

জানা গেছে, ৪৫ দিনের ছুটি নিয়ে ২৩ সেপ্টেম্বর এসভিপি৫৪১ বিমানে হজ পালনের জন্য সৌদি আরবে যান বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক হলের সিনিয়র পেশ ইমাম বজলুর রশিদ এবং শিক্ষা শাখার সেকশন অফিসার হাসিনা মমতাজ। হজ পালন করে ৩১ অক্টোবর দেশে ফেরার পথে অবৈধভাবে সোনার বার বহনের অপরাধে জেদ্দা বিমানবন্দর থেকে তাদের আটক করে সৌদি পুলিশ। ৫ নবেস্বর কর্মস্থলে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও এক মাস কেটে গেলেও তারা কর্মস্থলে যোগদান করেননি। নির্ধারিত ছুটির এক সপ্তাহ পরও কর্মস্থলে যোগদান না করায় বিষয়টি প্রশাসনের নজরে আসে। পরে রেজিস্ট্রার অবিলম্বে তাদের কর্মস্থলে উপস্থিত হওয়ার জন্য দুই দফায় চিঠি দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ফ্লাইট, ভিসা এবং পাসপোর্ট জটিলতার কারণ দেখিয়ে ওই কর্মকর্তাদের পরিবারের পক্ষ থেকে ছুটি বাড়ানোর আবেদন করা হয়।

বিষয়টি নিয়ে হাসিনা মমতাজের মায়ের সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, বজলুর রশিদের অবৈধ সোনার বারের কারণেই তাঁর মেয়ে ভোগান্তির শিকার হয়েছে। তবে বজলুর রশিদের ছেলে অল্লিউল্লাহ সোনার বার বহনে বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, পাসপোর্ট ও ভিসা জটিলতার কারণে তার বাবার দেশে ফিরতে দেরি হচ্ছে।

এদিকে বাকৃবির ওই দুই কর্মকর্তার সৌদি আরবের জেলে বন্দী থাকার কথা স্বীকার করে আলতাব ট্যুর এ্যান্ড ট্রাভেলসের চেয়ারম্যান এএসএম আহসান উল্লাহ বলেন, আমরা হজ মিশন ও ধর্ম মন্ত্রণালয়কে বিষয়টি অবগত করেছি। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার আবদুল খালেক বলেন, চাকরির চলে যাওয়ার ভয়ে সত্য ঘটনা আমাদের কাছ থেকে আড়াল করা হয়েছে। বিষয়টি জানলে অবশ্যই সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতরের সঙ্গে যোগাযোগ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হতো।

ঝালকাঠিতে পেট্রোল বোমা হামলা মামলায় গ্রেফতার দুই

নিজস্ব সংবাদদাতা, ঝালকাঠি, ১২ জানুয়ারি ॥ নলছিটি উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয় এবং একই ভবনে উপজেলা আওয়ামী লীগ অফিসে পেট্রোলবোমা হামলার ঘটনায় ২ জন গ্রেফতার হয়েছে। এরা হচ্ছে উপজেলা সদরের বাসিন্দা যুবদল কর্মী সুমন মল্লিক (৩৫) ও হেলাল শরীফ (৩২)। সোমবার পুলিশ এদের গ্রেফতার করেছে।