১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

আগামী সপ্তাহে দ্বিতীয় কিস্তির অর্থ ছাড়


অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের সহায়তায় গঠিত বিশেষ পুনর্অর্থায়ন সহায়তা তহবিলের দ্বিতীয় কিস্তির অর্থ আগামী সপ্তাহে হাতে পেতে যাচ্ছে ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশেন অব বাংলাদেশ (আইসিবি)। ৯শ’ কোটি টাকা সহায়তা তহবিলের মধ্যে প্রথম কিস্তির ৩০০ কোটি টাকা বরাদ্দ শেষে হওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংককে দ্বিতীয় কিস্তির টাকা ছাড়ের নির্দেশ দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। আর অর্থ হাতে পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আইসিবি তা ব্রোকারেজ হাউজ ও মার্চেন্ট ব্যাংকের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের বিও হিসাবে বিতরণ করবে বলে জানা গেছে। ইতোমধ্যে তহবিল তদারককারীদের সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে দ্বিতীয় কিস্তির অর্থ ছাড়ের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংককে অনুরোধ করেছে আইসিবি। গত ১ জানুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক এসএম মনিরুজ্জামানকে চিঠি দিয়েছে আইসিবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফায়েকুজ্জামান।

চিঠিতে উল্লেখ রয়েছে, তহবিলের প্রথম কিস্তির ৩০০ কোটি টাকার মধ্যে ৩০ জুন ২০১৪ পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট ১৫টি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের বিও হিসাবে মোট ২৯৯ কোটি ৮৩ লাখ টাকার ঋণ বিতরণ করা হয়েছে। ২০১৪ সালের ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত এর বিপরীতে আদায়কৃত সুদাসলের ৫২ কোটি ২৮ লাখ ৫৬ হাজার টাকা বাংলাদেশ ব্যাংককে ফেরত দিয়েছে আইসিবি। এছাড়া ব্যাংক স্থিতির ওপর সুদ বাবদ দেয়া হয়েছে আরও ১৬ কোটি ২৪ লাখ ৩৮ হাজার টাকা। এদিকে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে চাহিদা থাকলেও সহায়তা তহবিলের দ্বিতীয় কিস্তির অর্থ ছাড়ে বিলম্ব হচ্ছিল। ঋণ সুবিধা পেতে আগ্রহী বিনিয়োগকারীদের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৬ জুন কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও তহবিল তদারকি কমিটি অর্থ ছাড়ের অনুরোধ জানালেও অর্থ মন্ত্রণালয়ে তা আটকে যায়।

আইসিবি সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে এ তহবিল থেকে ঋণ সহায়তা পেতে ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীদের পক্ষ থেকে আরও ১৭২ কোটি টাকার আবেদন জমা রয়েছে। এখন পর্যন্ত পুনর্অর্থায়ন সহায়তা তহবিলের সুফল ভোগ করছেন ১০ হাজার ৫৬৮ জন বিনিয়োগকারী। মাত্র ৯ শতাংশ সুদে বিভিন্ন মার্চেন্ট ব্যাংক ও ব্রোকারেজ হাউজের ক্ষতিগ্রস্ত এ গ্রাহকদের জন্য ২৯৯ কোটি ৮২ লাখ টাকার ঋণ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে, যা আরও সিকিউরিটিজ কিনতে কাজে লাগিয়েছেন তারা। এতে বিনিয়োগকারীদের সামর্থ্য যেমন বেড়েছে, তেমনি বাজারে তারল্য ও চাহিদা বেড়েছে। গত ১২ জুন পর্যন্ত মোট ৪২টি প্রতিষ্ঠান পুনর্অর্থায়ন তহবিল থেকে মোট ৪৭৯ কোটি ২৬ লাখ টাকা বরাদ্দের আবেদন জানায়। এর মধ্যে ২০টি মার্চেন্ট ব্যাংক ও ২২টি ব্রোকারেজ হাউজ রয়েছে, যাদের ক্ষতিগ্রস্ত বিনিয়োগকারীর সংখ্যা ১৬ হাজার ৩২২। সে সময় পর্যন্ত মোট ৩২টি প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকদের ৩৫৭ কোটি ৯৬ লাখ টাকার ঋণ আবেদন মঞ্জুর করা হয়েছে, যার সিংহভাগই পুনর্অর্থায়ন তহবিলের প্রথম কিস্তি থেকে দেয়া হয়।