২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

শ্রুতির প্রতিশ্রুতি


গুণী বাবা কমল হাসানের মেয়ে... তাই উৎসাহ ও অনুপ্রেরণার অভাব ছিল না ছোটবেলা থেকেই। শুরুটা তাই হয়ে যায় ৬ বছর বয়স থেকেই, চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক সিঙ্গার হিসেবে। সেই যে শুরু। আর এখন চলছে পরিণত বয়সে সঙ্গীত ছাপিয়ে অভিনয়ের দাপট। বলছি শ্রুতি হাসানের কথা... সঙ্গীত জগত থেকে সিনেমায় নাম লিখিয়ে এই মুহূর্তে বলিউডের প্রতিশ্রুতিশীল শিল্পীদের মাঝে যিনি অন্যতম।

বেশকিছু তামিল ও হিন্দি ছবিতে শিশুশিল্পী হিসেবে গান গেয়ে ক্যারিয়ার শুরু করলেও অভিনেত্রী হিসেবে শ্রুতির শুরুটা ছিল বাবা কমল হাসান পরিচালিত ‘হে রাম’ সিনেমায় বলভ ভাই প্যাটেলের কন্যা হিসেবে। তবে পাদপ্রদীপের আলোতে আসতে অপেক্ষায় থাকতে হয় বেশ ক’বছর। ২০০৮ সালে ছোটবেলার বন্ধু ইমরান খানের সঙ্গে ‘লাক’ ছবিতে সাইন করার মাধ্যমে বলিউডে নিয়মিত অভিনয় শুরু করলেও সমালোচকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে ব্যর্থ হয় সে ছবিটি। নানান উত্থান-পতন পেরিয়ে ২০১৪ তে নিজেকে একজন সফল অভিনেত্রী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছেন তিনি। পেয়েছেন সমালোচকদের প্রশংসাবাণী। এই ২০১৫ সালটা ব্যস্ততম সময় হতে যাচ্ছে শ্রুতি হাসানের জন্য। কারণ খোদ বলিউডেই মুক্তি পেতে যাচ্ছে তার ৪টা ছবি। এছাড়া তামিল ও তেলেগু ভাষায় আছে আরও দুটি ছবি। বলিউডের মুক্তি প্রতীক্ষিত ‘গাব্বার’ এ শ্রুতির বিপরীতে আছেন অক্ষয় কুমার এবং বিদ্যুত জামওয়ালার বিপরীতে অভিনয় করছেন ‘যাত্রা’। এছাড়া জন আব্রাহামের বিপরীতেই আছে ‘রকি হ্যান্ডসাম’ ও ‘ওয়েলকাম ব্যাক’ নামে দুটি ছবি। শ্রুতির ঘনিষ্ঠ সূত্রে জানা যায় মিউজিকের পাশাপাশি ছবিগুলোতে অভিনয়ের স্বার্থে শ্রুতির নিরসল সাধনার কথা। শুধু তাই নয়। প্রতিটা ছবিতে তাকে দেখা যাবে ভিন্ন ভিন্ন ঘরানার গল্পে ভিন্ন ভিন্ন লুকে যা দর্শকদের দিতে পারে অন্য মাত্রার আনন্দ। আর চমক হিসেবে থাকছে ৯ জানুয়ারি মুক্তি প্রতীক্ষিত ‘তেভার’ ছবিতে অর্জুন কাপুরের সঙ্গে আইটেম সং এ দুর্দান্ত পারফরমেন্স। শুধু ২০১৫ নয়, শ্রুতি হাসানের ২০১৪ সালটিও ছিল অসাধারণ পারফরমেন্সের বছর। এ যেন একটি হিট ছবির সঙ্গে আরেকটি হিট ছবির সঙ্গে এক অনবদ্য রেস। শুরু হয়েছিল তেলেগু ছবি ‘জেভাদু’ দিয়ে। পরবর্তীতে রেস গুররাম ছবিতেও সে ধারা অব্যাহত রাখেন তিনি। আর এ সিনেমায় ‘পরহবসধ ঈযড়ড়ঢ়রংঃধ সধসধ’ গানটিকে তিনি রাখছেন নিজের ফেভারিট গানের তালিকায়। অবশ্য এজন্য তিনি কৃতিত্ব দিচ্ছেন তার সহশিল্পী অর্জুন এবং কোরিওগ্রাফারকে যিনি অনন্য শৈল্পিকভাবে গানটিকে উপস্থাপন করেছেন। পাশাপাশি গানটি ছিল শারীরিকভাবে বেশ চ্যালেঞ্জিং এবং মজার বিষয় হলো শ্রুতি মনে করছিলেন স্থানীয় চেন্নাই ছেলের স্টাইলে নাচের কারণে কেউ না আবার লুঙ্গি ড্যান্সের সঙ্গে না মিলিয়ে ফেলে। শ্রুতি হাসান নিজেকে একজন রাগী ও এ্যাকশন ফিল্মের চরিত্র হিসেবে দেখতে পছন্দ করেন পর্দার সামনে। তবে এজন্য তিনি কৃতিত্ব দিতে চান গল্পের লেখক বা গীতিকারকে। তার মতে আপনি ব্যক্তিগতভাবে যেমনই হন না কিংবা দর্শক আপনার স¤পর্কে যেমনটাই ভাবুক না কেন, পরিচালকের চাহিদা অনুযায়ী চরিত্রের মাঝে ঢুকে যাওয়াটাই তখন একমাত্র চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়ায়। কারণ পর্দার উপস্থিতিটা খুব অল্পসময়ের জন্য। তবে এই বছর বলিউডের পাশাপাশি মহেশবাবু ও বিজয়ের সঙ্গে তার তেলেগু ও তামিল ছবি নিয়ে বেশ উত্তেজিত শ্রুতি। নিজেকে কিভাবে বলিউড ও দক্ষিণি ছবির সঙ্গে তাল মিলিয়ে দর্শকের সামনে হাজির হবেন সে নিয়ে কষছেন ছক। পাশাপাশি নিজের সঙ্গীত সত্তাকেও দিচ্ছেন গুরুত্ব। তার মতে অভিনয়ের সঙ্গে সঙ্গে নিজের গান গাওয়ার চর্চা ধরে রাখাটা সত্যিই চ্যালেঞ্জিং যেখানে কয়েক মিনিটের গানের মাধ্যমে একটা গল্পও বলার সুযোগ থাকে। আর এ ব্যাপারে নিজের যুক্তরাষ্ট্রে নেয়া সঙ্গীতবিষয়ক শিক্ষাকেও আমলে নিচ্ছেন এই অভিনেত্রী।

২০১৫ তে অক্ষয় কুমার জন আব্রাহামের বিপরীতে অভিনীত সিনেমা মুক্তি পেতে যাচ্ছে। আর এ নিয়েও উত্তেজনার শেষ নেই শ্রুতির। আর এ সাফল্যের জন্য তিনি ভুলছেন না আপামর জনগণের আস্থা ও ভালবাসাকেও। শ্রুতির মতে দর্শকের ভোটে তামিল ও তেলেগু ছবির সবচেয়ে আকাক্সিক্ষত অভিনেত্রী নির্বাচিত হওয়া সত্যিই অনেক সৌভাগ্যের যা কিনা তাঁকে মুম্বাইয়ে স্থায়ী হতে সহায়ক হয়েছে। তবে নিজের এ অবস্থানে আসার পেছনে বাবা কমল হাসান ও মা সারিকার ভূমিকাকে এগিয়ে রাখছেন তিনি। তাঁর মতে আজকের অবস্থানে আসতে একটা দীর্ঘ সময় লেগেছে এবং বাবা-মার সমর্থন ছাড়া এটা সম্ভব ছিল না।