১৯ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৫ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

সৌদিতে নারীর গাড়ি চালানো এখনও অপরাধ!


পৃথিবী যখন এগিয়ে চলছে বিজ্ঞান ও প্রগতির পথে নারীর সমান অংশগ্রহণে তখন ভাবতে অবাক হতে হয় সৌদি আরবে নারীর গাড়ি চালানো অপরাধ!

পুরুষ অভিভাবক ছাড়া ভ্রমণ করার অনুমতি নেই সৌদি আরবের নারীদের। এমনকি সৌদি আরব পৃথিবীর একমাত্র দেশ যেখানে নারীদের গাড়ি চালানো নিষিদ্ধ ও আইনের পরিপন্থী। সম্প্রতি এ আইন অমান্য করার দায়ে দু’জন নারীকে আটক করেছে সৌদি পুলিশ। প্রায় একমাস আগে রাজ নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে গাড়ি চালিয়ে সৌদি আরবে ঢুকতে চেষ্টা করেন লোজেন অলি হাথলোল (২৫)। পুলিশি বাধার সম্মুখীন হলে তাকে সমর্থন করতে এগিয়ে আসেন সাংবাদিক মাইমা আল আমাউদি (৩৩)। তাদের দুজনকেই সৌদি পুলিশ গ্রেফতার করে। তাদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা সন্ত্রাসবিরোধী আদালতে স্থানান্তর করেছে পুলিশ কর্তৃপক্ষ। এমনকি সৌদি আরবে এখন থেকে অন্য কোন নারী গাড়ি চালানো সংক্রান্ত আইন অমান্য করলে তাদেরও সন্ত্রাসবিরোধী আদালতে বিচার করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ ও প্রশাসনের এমন সিন্ধান্তে দেশটির অধিকার কর্মীরা কড়া সমালোচনা করেছেন। এমনকি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোয়ও এর তীব্র নিন্দা করা হয়েছে। সৌদি নারীরা অনেকদিন থেকে গাড়ি চালানোবিরোধী আইন রদ করার জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোয় ক্যাম্পেন চালাচ্ছে। তাদের দাবির ভিত্তিতে ২০১৪ সালে বাদশাহর নিয়োজিত শূরা কাউন্সিল বা উপদেষ্টা পরিষদ প্রথমবারের মতো নারীদের গাড়ি চালানোর উপর বিদ্যমান নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করার সুপারিশ করেছে। তবে এজন্য বেশ কয়েকটি শর্তারোপ করা হয়েছিল। কিন্তু শর্তাধীন বা শর্তহীন কোনভাবেই এই আইন প্রত্যাহার করেনি দেশটির শূরা কাউন্সিল।

সম্প্রতি এই ঘটনায় নারীদের গাড়ি চালানোবিরোধী আইনের কড়া সমালোচনা উঠেছে বিশ্বব্যাপী। বিবাদীর আইনজীবী ও দেশটির মানবাধিকার কর্মীরা পুলিশের এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপীল করবেন এবং এ লক্ষ্যে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলবেন বলে জানান তাঁরা।

অপরাজিতা ডেস্ক