১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

বি’বাড়িয়ায় একই স্থানে মেলা ও মাহফিল ॥ উত্তেজনা


স্টাফ রিপোর্টার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ॥ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার শাহবাজপুরে একই স্থানে মেলা ও তাফসির মাহফিল নিয়ে দুটি পক্ষ মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে। যে কোন সময় রক্ষক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটতে পারে বলে এলাকাবাসী জানায়। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত কয়েক দিন আগে শাহবাজপুর গ্রামে রাজাবাড়িয়া কান্দি এলাকায় বিরাট প্যান্ডেল তৈরি করে মেলার আড়ালে জুয়া ও হাউজির আয়োজন করে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। মেলার লোক সমাগম বাড়ানোর জন্য জেলার বিভিন্ন উপজেলায় মাইকিং করে ব্যাপক প্রচারও শুরু করে। এতে গ্রামবাসী ও স্থানীয় মাদ্রাসার আলেম-ওলামারা বাধা প্রদান করে এবং উভয়পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এ ঘটনার পর গ্রামবাসী মেলা আয়োজনের বিপক্ষে স্থানীয় রিক্সাস্ট্যান্ডে সমাবেশের ডাকা দেয়। একই মেলার পক্ষের লোকজন একই স্থানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

এ নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে স্থানীয় প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করে। আজ বৃহস্পতিবার শাহবাজপুর গ্রামবাসীর উদ্যোগে মেলাস্থল থেকে মাত্র ৫০ গজ দূরে বিশাল প্যান্ডেল নির্মাণ করে ৩ দিনব্যাপী কোরান তাফসির মাহফিলের আয়োজন করে। অন্যদিকে মেলার লোকজন একই দিনে মেলা শুরুর ঘোষণা দিয়ে ব্যাপকভাবে মাইকিং করছে। এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

মাদারীপুরে স্বামীর এ্যাসিডে ঝলসে গেল স্ত্রীর মুখমণ্ডল

নিজস্ব সংবাদদাতা, মাদারীপুর, ৩১ ডিসেম্বর ॥ বুধবার সকালে মাদারীপুর সদর উপজেলার পূর্ব রাস্তি এলাকায় স্বামীর এ্যাসিডে ঝলসে গেছে স্ত্রী রোকসানা বেগমের (২৫) মুখমণ্ডল। তাকে আহত অবস্থায় মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জানা গেছে, কিছুদিন থেকেই মাদারীপুর সদর উপজেলার পূর্ব রাস্তি গ্রামের নাসির খলিফার (৩০) সঙ্গে তার স্ত্রীর রোকসানা বেগমের (২৫) পারিবারিক দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। এই ঘটনার জের ধরে বুধবার সকালে নাসির তার স্ত্রী রোখসানা বেগমকে এ্যাসিড নিক্ষেপ করে। এ সময় গৃহবধূর আর্তচিৎকারে প্রতিবেশীরা এলে নাসির পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ এসে গৃহবধূকে উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। গৃহবধূ রোকসানা জানান, ‘তার স্বামী মাদকাসক্ত। সে কোন কাজকর্ম করত না। প্রায়ই সে মাদক কিনতে টাকা-পয়সা চাইত, টাকা না দিলেই মারধর করত। বুধবার সকালে আমার কাছে টাকা চাইছিল, আমি টাকা না দেয়ায় আমাকে এ্যাসিড মেরে পালিয়ে যায়।’