১৯ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

সহিংস রাজনীতি উন্নয়নের জন্য বড় বাধা ॥ ও. কাদের


বিশেষ প্রতিনিধি ॥ আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী-সচিব সৎ হলে ৫০ শতাংশ দুর্নীতি এমনিতেই কমে যাবে। আমার মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতি কমে গেছে। পদ্মা সেতু এখন স্বপ্ন নয় চলমান বাস্তবতা। ২০১৮ সালের মধ্যে যে টার্গেট করা হয়েছে রেলও চলবে, গাড়িও চলবে। আশা করি, রেলে বসে পদ্মার পূর্ণিমার চাঁদ দেখতে সেতু পার হবে আমাদের নতুন প্রজন্ম।

উন্নয়নের জন্য সহিংস রাজনীতি একটি বড় বাধা উল্লেখ করে তিনি বলেন, যখন উন্নয়ন কাজ চলে তখন হরতাল, অবরোধের মতো কর্মসূচী থাকলে আক্রমণের আশঙ্কায় শ্রমিকরা কাজে নামতে চান না। এতে কাজের বিঘœ ঘটে। বিএনপি-জামায়াত আবার ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগের মতো সহিংস রাজনীতি শুরু করেছে। আবার গাড়িতে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যা করছে।

সোমবার রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে যোগাযোগ দৃশ্যমান ক্ষেত্রে অগ্রগতি সম্পর্কে ‘এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাখতে গিয়ে তিনি এসব বলেন। ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটি এ সেমিনারের আয়োজন করে।

মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, মন্ত্রীদের সংশ্লিষ্ট কাজের জন্য তদারকি করতে হয়, না হলে কাজ দৃশ্যমান এগোয় না। ঠিকাদার কাজ করে না, দায়িত্বশীল ব্যক্তিরাও গাফিলতি করেন। ইলেকশন পলিটিক্সই (নির্বাচন রাজনীতি) উন্নয়নের পথে বাধা উল্লেখ করে তিনি বলেন, রাজধানীতে ফুটপাথে অবৈধ দোকান পার্কিং সরানোর উদ্যোগ নিয়েও ব্যর্থ হয়েছি। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা তাদের মদদ দেন। এ সময় মঞ্চে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের উদ্দেশে সেতুমন্ত্রী বলেন, এ ব্যাপারে আপনাদের এগিয়ে আসতে হবে। এটা দলীয়ভাবে একটি সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

সেমিনারে ওবায়দুল কাদের তাঁর মন্ত্রণালয়ের দৃশ্যমান বিভিন্ন প্রকল্প এবং কাজের অগ্রগতি তুলে ধরে বলেন, একটা জায়গায় দুর্বল রয়েছি। সেটা পরিবহন সেক্টরে। এই সেক্টরের বিশৃঙ্খলা, কো-অর্ডিনেশনের সমস্যাগুলো এ্যাডস (যোগ) এবং ফিক্সড (নির্দিষ্ট) করে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে পারিনি।

মহাসড়কে বিভিন্ন নেতার নামে বড় বড় বিলবোর্ডের কারণে দুর্ঘটনা বেশি হচ্ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, মহাসড়কে দুর্ঘটনা হচ্ছে বিলবোর্ডের কারণে। চিনি না, জানি না- বিলবোর্ড দেখে মনে হয় মহানেতা-বিশ্বনেতা হয়ে গেছে। এসব সম্ভাব্য নেতার বিলবোর্ডে ভরে গেছে হাইওয়ে। ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় শুধু বিলবোর্ড আর বিলবোর্ড চোখে পড়ে।

সড়ক দুর্ঘটনার প্রসঙ্গ টেনে শিক্ষামন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে মন্ত্রী বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করেছি সড়ক দুর্ঘটনার বিষয়বস্তু পাঠ্যবইয়ে অন্তর্ভুক্ত করতে। যাতে স্কুলের শিক্ষার্থীরা শিক্ষা কার্যক্রম থেকেই শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে, কিভাবে রাস্তা পারাপার হতে হয়, কিভাবে ট্রাফিক সিগন্যাল দেখে রাস্তা পার হতে হয়। সারাদেশে সড়ক পথে বুয়েটের টিম ১৪৪টি ব্লাকস্পট করেছে। আগামী বছরে এসব স্পটগুলোর কাজ শুরু হবে।

ঢাকা-চট্টগ্রাম চার লেন রাস্তার তৈরির অগ্রগতি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সবাই ভাবেন কেন দেরি হয়। এই ফোর লেন রাস্তা করতে গিয়ে দশটা মসজিদ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরিয়েছি, করবস্থান অন্যত্র সরাতে হয়েছে। মন্দিরও সরাতে হয়েছে। এগুলো কি আমাদের দেশের রাজনীতির কালচারে এতই সহজ? এখন ফোর লেনের কাজের অগ্রগতি ভাল। ফোর লেন রাস্তার কাজ ৯৮ কিলোমিটার হয়ে গেছে। আশা করি জুন মাসের মধ্যেই আপনারা সাড়ে চার ঘণ্টার মধ্যে ঢাকা টু চট্টগ্রাম যেতে পারবেন।

কমিটির চেয়ারম্যান এইচটি ইমামের সভাপতিত্বে সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বুয়েটের অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান। তিনি সড়ক-যোগাযোগ ও সেতু মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকা-ের খ-চিত্র তুলে ধরেন। আরও বক্তব্য রাখেন কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন, প্রকৌশলী অধ্যাপক ড. সাহাদৎ হোসেন শৈলী প্রমুখ।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: