১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

নিত্য বাজুক বজ্রবীণা, মানুষ জাগুক জয়ে


নিত্য বাজুক বজ্রবীণা, মানুষ জাগুক জয়ে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ লাল-সবুজের পতাকা আর রং-বেরঙের ফেস্টুন হাতে হাজার হাজার মানুষের ভিড়। একদিকে ঢাকের বাদ্যের সঙ্গে তরুণ-তরুণীর নৃত্য, মঞ্চে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভর কোরিয়োগ্রাফ আবার একইসঙ্গে অন্যদিকে চলছে মুহুর্মুহু স্লোগান। সব মিলিয়ে শুক্রবার সকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বর ছিল উৎসব মুখর। লক্ষ্য একটাই, তা হলো গণসংস্কৃতির অন্যতম ধারক-বাহক সংগঠন বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর জাতীয় সম্মেলন উদ্বোধন। সম্মেলনের স্লোগান ‘নিত্য বাজুক বজ্রবীণা, মানুষ জাগুক জয়ে।’ জাতীয় সঙ্গীতের মধ্যদিয়ে শুরু হয় সংগঠনটির দুই দিনব্যাপী দ্বিবার্ষিক এ সম্মেলনের উদ্বোধনী পর্ব। একইসঙ্গে উত্তোলন করা হয় জাতীয় পতাকা ও সংগঠনের পতাকা। এবারের সম্মেলনের উদ্বোধন ঘোষণা করেন ২০০৫ সালে নেত্রকোনায় উদীচী কার্যালয়ে মৌলবাদী প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠীর নৃশংস বোমা হামলায় নিহত খাজা হায়দার হোসেন ও সুদীপ্তা পাল শেলীর পরিবারের সদস্য এবং ওই ঘটনায় আহত সহযোদ্ধা তুষার কান্তি পাল। তিনি বলেন, স্বাধীনতার পরাজিত শত্রুর দোসরদর নির্মম হামলার শিকার আমি। কিন্তু আমি আশাহত নই। আমি মনেকরি আমাদের দেশ থেকে একদিন এ নরপিশাচ উৎখাত হবেই। আমরা ভবিষ্যতে জঙ্গীবাদ মুক্ত একটি দেশ পাবই। উদ্বোধন ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে চত্বরজুড়ে রংবেরংয়ের আবিরে ছেয়ে যায়। শুরু হয় সম্মেলক গণসঙ্গীত। ‘মিছিলে মিছিলে চলো একসঙ্গে সবাই’ ও ‘আরসির সামনে একা একা দাঁড়িয়ে যদি ভাবি’ পর পর দুটি গান পরিবেশন করে সংগঠনের শিল্পীরা। এরপর শুরু হয় সংগঠনের কেন্দ্রীয় সংসদের পরিবেশনায় গীতি আলেখ্য ‘মানুষ জাগুক জয়ে।’ আলেখ্যটি রচনা ও নির্দেশনা দিয়েছেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন। পরে শহীদ বেদীতে মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান উদীচীর কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। উদ্বোধনী পর্ব শেষে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শহীদ মিনার থেকে শুরু হয়ে দোয়েল চত্বর ও টিএসসি হয়ে পাবলিক লাইব্রেরী চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তনে শুরু হয় উদ্বোধনী আলোচনা সভা।