২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

রফতানি পণ্যে যুক্ত হলো চাল


মোয়াজ্জেমুল হক, চট্টগ্রাম অফিস ॥ বছরের পর বছর চাহিদা মেটাতে আমদানি করতে হলেও আজ চাল নিয়ে বাংলাদেশ প্রবেশ করেছে রফতানির যুগে। বাংলাদেশ থেকে গার্মেন্টসসহ বিভিন্ন ধরনের পণ্য বিদেশে রফতানি হয়ে থাকে। এবার তার সঙ্গে যোগ হলো চাল। স্বাধীনতার পর সরকারী পর্যায়ে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ বিদেশে চাল রফতানি করতে যাচ্ছে।

শ্রীলঙ্কা সরকার প্রায় ১৮০ কোটি টাকা মূল্যের ৫০ হাজার মেট্রিক টন মোটা সিদ্ধ চাল নিচ্ছে বাংলাদেশ থেকে। প্রথম চালানে সাড়ে ১২ হাজার মেট্রিক টন চাল নিয়ে বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশনের জাহাজ এমভি বাংলার কাকলি আজ দুপুর নাগাদ চট্টগ্রাম বন্দর ত্যাগ করার কথা রয়েছে। এ সংক্রান্ত আনুষ্ঠানিকতায় আজ বন্দরে খাদ্যমন্ত্রী, খাদ্য সচিব ও খাদ্য বিভাগীয় মহাপরিচালক উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।

চট্টগ্রাম খাদ্য বিভাগীয় আঞ্চলিক নিয়ন্ত্রক আবদুল আজিজ মোল্লা জনকণ্ঠকে জানান, প্রথম চালান পৌঁছার পর পরবর্তীতে আরও সাড়ে ১২ হাজার টন করে চালের চালান শ্রীলঙ্কার কলম্বো বন্দরে পৌঁছানো হবে। এসব চালের রফতানি মূল্য নির্ধারিত হয়েছে প্রতিটন সাড়ে ৪শ’ মার্কিন ডলার হারে।

খাদ্য বিভাগীয় সূত্র জানায়, বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ অর্জন ও পর্যাপ্ত পরিমাণ চাল মজুদ থাকার কথা বিবেচনায় এনে রফতানির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। সম্প্রতি ঢাকায় শ্রীলঙ্কা সরকার ঢাকাস্থ তাদের হাইকমিশনের মাধ্যমে সিদ্ধ মোটা চাল বাংলাদেশ থেকে আমদানির প্রস্তাব দেয়। পরবর্তীতে বাণিজ্য ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের অনাপত্তি পাওয়া গেলে মন্ত্রিসভা কমিটি শ্রীলঙ্কায় চাল রফতানির অনুমোদন প্রদান করে। সূত্র জানায়, শ্রীলঙ্কা আপাতত দু’দফায় ২৫ হাজার টন চাল নেবে। পরবর্তীতে সুবিধামতো সময়ে অবশিষ্ট চাল নেবে। শ্রীলঙ্কার সঙ্গে এ সংক্রান্তে আনুষ্ঠানিক চুক্তি স্বাক্ষর হয় গত ৩ ডিসেম্বর।

এদিকে সরকারী সূত্রে জানানো হয়েছে, দেশে বর্তমানে প্রায় ১২ লাখ মেট্রিন টন খাদ্যের মজুদ রয়েছে। যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আড়াই লাখ টন বেশি। সরকার বর্তমানে ১ লাখ টনেরও বেশি চাল রফতানি করতে প্রস্তুত রয়েছে। আঞ্চলিক খাদ্য কর্মকর্তা আরও জানান, বর্তমানে মজুদকৃত খাদ্যের মধ্যে সাড়ে ১১ লাখ টনেরও বেশি চাল এবং অবশিষ্টগুলো গম।

ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে চাল রফতানির বিষয়টিকে সাধুবাদ জানানো হয়েছে। চট্টগ্রামের চালের বৃহত্তম বাজার চাক্তাইয়ের ব্যবসায়ী ওমর আজম জানান, এটা আনন্দের ঘটনা। আমদানিনির্ভর একটি খাত এখন রফতানিমুখী হয়েছে।