১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে আবাহনী হারাল মোহামেডানকে


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ নাসির হোসেন কী ব্যাটিংই না করলেন। ৬৯ বলে ৫ চার ও ৫ ছক্কায় ৮২ রান করলেন। তার এ ব্যাটিংয়ের কাছেই মোহামেডান হেরে গেল। চরম প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ হলো। তবে ২ বল বাকি থাকতে ৩ উইকেটে ম্যাচ জিতে নিল আবাহনী। ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগে যেমন সুপার লীগেও তেমন মোহামেডানের বিপক্ষে আবাহনীরই জয় হলো। আবাহনীর মতো প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবও একই দলের বিপক্ষে এবার লীগে দ্বিতীয়বারের মতো জয় তুলে নিয়েছে। লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জকে লীগ পর্বে হারিয়েছে। এবার সুপার লীগেও ৮৪ রানের বড় ব্যবধানেই জয় পেয়েছে প্রাইম ব্যাংক। তামিম ইকবাল, রুবেল হোসেনহীন রূপগঞ্জ যেন আরও দুর্বল হয়ে পড়েছে। কলাবাগান ক্রিকেট একাডেমির বিপক্ষে এদিন ৯ উইকেটের বড় জয় পেয়েছে প্রাইম দোলেশ্বরও। রনি তালুকদার (১৩২*) ও মেহেদী মারুফ (১০৬) দুইজনই শতক হাঁকিয়েছেন।

নাসিরের ব্যাটিং ঝলক ॥ ফতুল্লায় টস জিতে মাশরাফির দল মোহামেডান আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু খুব জৌলুস ছড়াতে পারেনি। আরিফুল হকের (১৩৭ বলে ১১ চার ও ১ ছক্কায় ১০৯ রান) শতকের সঙ্গে নাঈম ইসলামের ৫১ ও মাশরাফি বিন মর্তুজার ৩৮ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে ৫০ ওভার খেলে ২৪০ রান করে মোহামেডান। ৪ উইকেট নেয়া শুভাশিষ রয়ের বোলিং তোপে ৩৮ রানেই ৪ উইকেট হারিয়ে বসে মোহামেডান। খাদের কিনারায় পড়ে যায় দলটি। সেখান থেকে পঞ্চম উইকেট জুটিতে আরিফুল ও নাঈম মিলে দলকে টেনে তোলেন। ১২১ রানের জুটি গড়েন। দলীয় ১৫৯ রানে নাঈম রানআউট হলে এ জুটি ভেঙ্গে যায়। এরপর সবার ধারণা জন্মে যায়, ২০০ রান করাই কঠিন হয়ে পড়বে মোহামেডানের। কিন্তু ষষ্ঠ উইকেটেই আরেকটি বড় জুটির দেখা মিলে যায়। এবার আরিফুলের সঙ্গে যোগ দেন মাশরাফি। ২২৬ রানে দলের নেতা আউট হওয়ার আগে আরিফুলের সঙ্গে ৬৭ রানের জুটি গড়ে যান। সেখানেই মোহামেডান ২০০ রানেরও বেশি স্কোরবোর্ডে যোগ করে ফেলে। শেষ পর্যন্ত আরিফুল শতক করেন। মোহামেডানও ২৫০ রানের কাছাকাছি চলে যায়। তবে এ রান আবাহনী অতিক্রম করে ফেলে। তবে চরম প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হয় ম্যাচটি। শেষ ওভারে গিয়ে জয় পায় আবাহনী। নাসির হোসেন রাখেন সবচেয়ে বড় অবদান। বিশ্বকাপের দলে সুযোগ পাওয়ার মতো ইনিংসই খেলেন নাসির।

সৌম্যের ব্যাটিং দ্যুতি ॥ বিকেএসপিতেই আবারও প্রাইম ব্যাংক-লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ ম্যাচ হয়। লীগ পর্বের ম্যাচটি নিয়ে সে কী লঙ্কাকা-। ম্যাচ হেরেই লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ দলটির মালিক লুৎফর রহমান বাদল আম্পায়ারিং নিয়ে অভিযোগ তোলেন। সেই সঙ্গে বিসিবি কর্মকর্তাদের ‘চোর-চোট্টা’য় বলেন। এরফলও ভোগ করছেন বাদল। মামলায় এমনভাবেই জর্জরিত হয়েছেন যে দেশেই এখন থাকতে পারছেন না। দেশে পাঁ রাখামাত্রই যে গ্রেফতার হবেন। আবারও সুপার লীগে এই দুই দলের মধ্যকার ম্যাচ হয়। যথারীতি বিকেএসপিতেই হয় খেলা। সেই খেলাতেও হার হয় রূপগঞ্জ দলটিরই। টস জিতে আগে ব্যাট করে প্রাইম ব্যাংক দলের ব্যাটসম্যানদের ঐক্যবদ্ধ নৈপুণ্যে ৭ উইকেটে ৫০ ওভারে ৩০৪ রানের বড় স্কোরই গড়ে। বিশ্বকাপ দলে থাকার দাবিদার সৌম্য সরকার ৮১ রান করেন। শ্রীলঙ্কার থিলিনা কান্ডাম্বির ব্যাট থেকে আসে ৭১ রান। অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদও অর্ধশতক (৫২ রান) হাঁকান। রূপগঞ্জের বিদেশী ক্রিকেটার আসহার জাইদি ও শরীফুল্লাহ ২টি করে উইকেট নেন। অধিনায়ক সাকিব নেন ১ উইকেট। স্কোরবোর্ডে রান এত বেশি জমা হয়ে যায় যে এ রান করে জয় তুলে নেয়াই কঠিন। তাই হলো। আবুল হাসান রাজুকে তিন নম্বরে নামিয়ে দেয়া হলো। ৭২ রানের ইনিংসও খেললেন। কিন্তু তা কাজে দিল না। ৪৩ ওভারে ২২০ রান করতেই অলআউট হয়ে গেল রূপগঞ্জ।

রনি, মারুফের শতকে আয়েশি জয় দোলেশ্বরের ॥ মিরপুরে কলাবাগান ক্রিকেট একাডেমি-প্রাইম দোলেশ্বর ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। যে দলটি জিতবে শিরোপা জয়ের আশা তাদের থাকবে। যে দলটি হারবে শিরোপা থেকে প্রায় ছিঁটকে পড়বে সেই দলটি। এমন যখন পরিস্থিতি, সেই ম্যাচটিতে হারল কলাবাগান সিএ। টস হারে দলটি। সেই সঙ্গে যেন ম্যাচও হারে। আগে ব্যাট করে ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২৬২ রান করে। বিশ্বকাপের দলে সুযোগ পাওয়ার দাবিদার সাব্বির রহমান রুম্মন ৭৫ রান করেন। নাফিস ইকবালের ব্যাট থেকে আসে ৭০ রান। কিন্তু এত বেশি রান করেও প্রাইম দোলেশ্বরের সঙ্গে কুলিয়ে উঠতে পারেনি কলাবাগান ক্রিকেট একাডেমি। দুই ওপেনার রনি তালুকদার ও মেহেদী মারুফই যে শতক হাঁকিয়ে বসেছেন। এ দুইজনের শতকে মাত্র ১ উইকেট হারিয়ে ৪৪.১ ওভারে ২৬৪ রান করে ম্যাচ জিতে যায় প্রাইম দোলেশ্বর। লীগ পর্বের ম্যাচে কলাবাগান ক্রিকেট একাডেমির কাছে হেরেছিল প্রাইম দোলেশ্বর। এবার প্রতিশোধ নিয়ে নিল।