২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

পাকিস্তানে সন্ত্রাস দমনে সর্বশক্তি প্রয়োগ করা হবে


জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ পাকিস্তানে সন্ত্রাসবাদ দমনে সর্বশক্তি প্রয়োগ করা হবে বলে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সোমবার প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের সভাপতিত্বে সন্ত্রাসবাদবিরোধী এক উচ্চপর্যায়ের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ইমরান খানের পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) জঙ্গী সংগঠন টিটিপিসহ সব জঙ্গী গোষ্ঠীর সন্ত্রাসী তৎপরতার নিন্দা করেছে। সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় তারা সামরিক বাহিনী এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি সর্বাত্মক সমর্থন ব্যক্ত করেছেন। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে ৫৫ জঙ্গীর মৃত্যুদ- কার্যকর করা হবে। প্রেসিডেন্ট মামনুন হোসেন তাদের প্রাণভিক্ষার আবেদন নাকচ করে দেয়ায় দ্রুত মৃত্যুদ- কার্যকর করা হবে। সন্ত্রাসের সঙ্গে সম্পৃক্ততার অপরাধে দোষী সাব্যস্ত আরও প্রায় পাঁচশ’ বন্দীর মৃত্যুদ- আগামী দুই থেকে তিন সপ্তাহের মধ্যে কার্যকর করা হবে বলে রবিবার জানান দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চৌধুরী নিসার আলী খান। এছাড়া সন্ত্রাসবাদবিরোধী ওয়ার্কিং গ্রুপ জঙ্গীদের সফলভাবে মোকাবেলার জন্য কয়েকটি নির্দেশনা চূড়ান্ত করেছে। পিটিআই প্রধান ইমরান খান সোমবার খাইবার পাখতুনখাওয়া পুলিশকে গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহে পর্যাপ্ত সহায়তার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। খবর বিবিসি, ডন ও এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ বলেছেন, শহর ও প্রত্যন্ত অঞ্চলে লুকিয়ে থাকা সন্ত্রাসীদের খুঁজে বের করা হবে। উচ্চপর্যায়ের ওই বৈঠকে সন্ত্রাসবাদ বিরোধী বিদ্যমান সকল আইন পর্যালোচনা করা হয়। এসব আইন আরও কঠোর করতে প্রয়োজনীয় সংশোধন আনার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বৈঠকে। প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী খাজা জহির এবং আইন সচিব ব্যারিস্টার জাফরুল্লাহ বিভিন্ন আদালতে ঝুলে থাকা মামলা এবং বিদ্যমান সন্ত্রাস দমন আইন সম্পর্কে ব্রিফ করেন।

বৈঠকে সন্ত্রাসীদের দ্রুত বিচারের জন্য বিশেষ সামরিক আদালত গঠনের প্রস্তাবও আলোচনা করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ বৈঠকে বলেন, উত্তর ওয়াজিরিস্তানে জারব-ই আজব চলছে। শহর ও প্রত্যন্ত অঞ্চলে যেসব সন্ত্রাসী লুকিয়ে আছে তাদের আটক করতে দেশব্যাপী আরও অভিযান চালানো হবে। তিনি দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, হাজারা শহর, পেশোয়ার চার্চ এবং অন্যান্য স্থানে হামলার জন্য দায়ী সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করা হবে। বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চৌধুরী নিসার আলী খান, জেনারেল (অব) কাদির বালুচ, অর্থমন্ত্রী ইছাক দার এবং উর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সোমবার প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ এ্যাটর্নি জেনারেল সালমান আসলাম বাট এবং তাঁর আইনী দলকে মৃত্যুদ- স্থগিত করা মামলার বিষয়ে খোঁজখবর নিতে নির্দেশনা দিয়েছেন। যেসব অপরাধীর বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদ বিষয়ক মামলায় মৃত্যুদ- স্থগিত করেছে আদালত যেসব মামলা নিষ্পত্তি করার তাগিদ দেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা পাওয়ার পর সরকারের আইনী দল যেসব মামলায় স্থগিতাদেশ আছে, সেগুলোর বিরুদ্ধে রিভিউ পিটিশন দায়ের করবে যাতে মামলাগুলোর দ্রুত নিষ্পত্তি হয়।

প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, ২০১২ সাল থেকে প্রেসিডেন্টের কাছে ৫৫ অপরাধীর প্রাণভিক্ষার আবেদন ঝুলে আছে। আন্তর্জাতিক চাপের কারণে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারি সেগুলোর বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত দেননি। তিনি বলেন, মৃত্যুদ- কার্যকরে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হওয়ায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাদের বিরুদ্ধে ‘ব্ল্যাক ওয়ারেন্ট’ (মৃত্যু পরোয়ানা) ইস্যু করবে। সে অনুযায়ী দ-প্রাপ্তদের মৃত্যুদ- কার্যকর করা হবে।

ইসলামাবাদে এক সংবাদ সম্মেলনে নিসার আলী বলেছেন, পাঁচশ’ বন্দীর মৃত্যুদ- কার্যকর করার বিষয়ে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে এবং তাদের প্রাণভিক্ষার আবেদন ইতোমধ্যেই নাকচ করে দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট। পেশোয়ারে স্কুলে হামলার আগেই সন্ত্রাস সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে মৃত্যুদ- কার্যকর করার ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তিনি বলেন, পেশোয়ারের শোকাবহ ঘটনার আগেই সেনাপ্রধান জেনারেল রাহিল শরীফ সেই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবি প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের কাছে তুলে ধরেন। নিসার আলী সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পুরো জাতিকে একত্রিত হওয়ার আহ্বান জানান। পিটিআইর কোর কমিটির বৈঠকের পর তথ্য সম্পাদক ড. শিরিন মাজারি বলেন, পাকিস্তানের জনগণের ওপর বর্বরোচিত হামলার জন্য নিষিদ্ধ ঘোষিত টিটিপি এবং অন্য জঙ্গী গ্রুপের প্রতি তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছে। এছাড়া পিটিআই কমিটি সন্ত্রাসবাদ দমনে ২০ দফা খসড়া প্রস্তাবনা অনুমোদন করেছে। সন্ত্রাসবাদ দমনে জাতীয় কর্মপরিকল্পনা কমিটির কাছে দলটি এই প্রস্তাবনা হস্তান্তর করবে। পিটিআই গত ১৬ আর্মি পাবলিক স্কুলে নারকীয় হত্যাযজ্ঞের ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেছে। তারা নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

সোমবার পেশোয়ারে এক সংবাদ সম্মেলনে ইমরান খান বলেন, সন্ত্রাসবাদ পাকিস্তনের জাতীয় ইস্যু। সন্ত্রাসবাদ দমনে তিনি খাইবার পাখতুনখাওয়ায় ‘ফ্রন্টিয়ার কনস্টাবুলারি’ (এফসি) বাহিনী মোতায়েনের জন্য নওয়াজ সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করা পুলিশের কাজ নয়।

এদিকে আর্মি পাবলিক স্কুলে হামলায় সহায়তার অভিযোগে সন্দেহভাজন কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে নিরাপত্তা বাহিনী। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিসার আলী খান গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ১৩২ শিশুসহ ১৪৯ জন হত্যার ঘটনায় গ্রেফতারকৃতরা সহযোগী হিসেবে কাজ করেছে বলে তথ্য রয়েছে। জঙ্গীরা আরও হামলার ছক কষেছিল বলে টের পেয়েছে গোয়েন্দারা।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: