২৪ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

১১১ ছিটমহলে এবার পালিত হলো ভিন্ন মাত্রায় ১১১ ছিটমহলে এবার পালিত হলো ভিন্ন ম


তাহমিন হক ববি, নীলফামারী ও রাজু মোস্তাফিজ কুড়িগ্রাম থেকে ॥ ৬৭ বছরের অবরুদ্ধ জীবন। নাগরিক অধিকার বঞ্চিত বাংলাদেশ-ভারতের ১৬২ ছিটমহলবাসীর দুঃখ ঘোচার সু-খবরে পাল্টে যাচ্ছে ছিটমহলের চিত্র। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সায়ে ছিটমহল বিনিময় চুক্তি বাস্তবায়নের দৃঢ় ঘোষণায় এবার ছিটমহলবাসীর আনন্দ উৎসব এখন বিজয় দিবসকে ঘিরে ছড়িয়ে পড়েছে। বিজয় দিবস পালনে আনন্দ উচ্ছ্বাসে মেতে ওঠে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ভারতীয় ১১১ ছিটমহলবাসী। বাস্তবতায় এই ছিটমহলবাসী ভারতীয় নাগরিক হলেও তারা এখন নিজেদের বাংলাদেশের নাগরিকত্বের আশায় বুক বেঁধে বিজয়ের উল্লাসে মেতে উঠেছে। মহান বিজয় দিবস উদযাপনে ছিটমহলগুলোতে উড়ছে বাংলাদেশের লাল সবুজের পতাকা।বাংলাদেশ-ভারত ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির ব্যানারে একযোগে এ কর্মসূচী ছিটমহলগুলোতে পালন করা হয়। দিবসটি ঘিরে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি, চিরদিন তোমার আকাশ তোমার বাতাস আমার প্রাণে, ওমা আমার প্রাণে বাঁজায় বাঁশি’ কণ্ঠে গেয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন, স্থানীয়ভাবে তৈরি স্মৃতিসৌধে পু®পার্ঘ্য অর্পণ, বর্ণাঢ্য র‌্যালি, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এ ছাড়া ছিটমহলের প্রতিটি বাড়িতে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা শোভা পায়। মঙ্গলবার বিজয় দিবসে বিভিন্ন ছিটমহল সরেজমিনে ঘুরে দেখা মেলে বিজয় দিবসের উল্লাসের ধ্বনি জয়বাংলা; বাংলার জয়। ছোট ছেলেমেয়েদের সঙ্গে নিয়ে ছিটমহলের সব বয়সের নারী পুরুষ আনন্দ উৎসবে মেতেছে। কোটভাজনীর ছিটমহলের চেয়ারম্যান ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির সহ-সভাপতি আলতাফুর রহমান, বালাপাড়ার ছিটমহলের চেয়ারম্যান সফিকুল ইসলাম কাজল যৌথভাবে ছিটবাসীদের সঙ্গে নিয়ে ছিটের ভেতর বাঁশের তৈরি স্মৃতিসৌধে পুষ্পমাল্য অর্পণের পর বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন। এরপর ছিটের প্রতিটি বাসাবাড়িতে উড়ানো হয় জাতীয় পতাকা। এর পাশাপাশি আবাল বৃদ্ধর হাতে হাতে শোভা পায় ছোট আকারের জাতীয় পতাকা। এমনকি ছিটমহলের নতুন প্রজন্মের শিশুরা র‌্যালিসহ সকল কর্মসূচীতে অংশ নেয়। অপরদিকে কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ি উপজেলার দাশিয়ার ছড়া ছিটমহলের কালিরহাট বাজারের পাশে ফাঁকা মাঠে বিশাল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। নির্মাণ করা হয় শহীদ মিনার। এই শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণের মধ্য দিয়ে দিবসের সূচনা ঘটে। জাতীয় পতাকা উত্তোলন, সালাম গ্রহণ শেষে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ‘খাঁচার বন্দী জীবন থেকে মুক্তি চাই- হতে চাই বাংলাদেশের নাগরিক’Ñ এ দাবি বাস্তবায়নে উপস্থিত সবাই দৃঢ় কণ্ঠে শপথ গ্রহণ করেন উপস্থিত নারী-পুরুষ। একই সঙ্গে তারা দাবি আদায়ের আন্দোলন জোরদার করতে উদ্বোধন করা হয় সাংগঠনিক সফরের। স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদদের স্মরণে মসজিদে মসজিদে দোয়া মাহফিল ও মন্দিরে বিশেষ প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হয়। সহস্রাধিক মানুষের এ সমাবেশে প্রধান অতিথি কুড়িগ্রাম জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি মোঃ জাফর আলী। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির ভারতীয় চ্যাপ্টারের সহ-সাধারণ সম্পাদক দীপ্তিমান সেনগুপ্ত, বিশিষ্ট সাহিত্যিক অমর মিত্র, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল ইসলাম মঞ্জু ম-ল, পিপি এস এম আব্রাহাম লিংকন। ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির বাংলাদেশ ইউনিটের সভাপতি মইনুল হকের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ছিটমহলের নেতা গোলাম মোস্তফা, ফুলবাড়ী উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা, আওয়ামী লীগ নেতা আতাউর রহমান শেখ প্রমুখ। ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির ব্যানারে এ কর্মসূচী সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলে।