২৪ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

সাবেক স্ত্রী ও শাশুড়িসহ ৬ জনকে গুলি করে হত্যা


যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়ার এক ব্যক্তির গুলিতে তার সাবেক স্ত্রী, সাবেক শাশুড়ি, সাবেক নানী শাশুড়ি, সাবেক শ্যালিকা ও ওই পরিবারের অপর দু’সদস্য নিহত হয়েছেন। সোমবার পেনসিলভেনিয়ার ফিলাডেলফিয়া শহর থেকে ৮০ কিলোমিটার উত্তরপশ্চিমের পেন্সবার্গ টাউনে এ ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত সন্দেভাজন ঘাতককে ধরতে পেন্সবার্গ টাউন ও এর আশপাশে অভিযান চালাচ্ছিল পুলিশ। সন্দেহভাজন ওই ঘাতকের নাম ব্র্যাডলি ইউলিয়াম স্টোন। ৩৫ বছর বয়সী স্টোন ইরাক যুদ্ধের অভিজ্ঞ রসনা, তিনি পেন্সবার্গেই বসবাস করতেন।

সোমবার ভোর সাড়ে ৩টার দিকে সাউদারটনে স্টোন তার সাবেক শ্যালিকা, শ্যালিকার স্বামী ও তাদের ১৪ বছরের কন্যাকে গুলি করে হত্যা করেন। গুলিতে আহত হয়েও বেঁচে যান পরিবারটির ১৭ বছর বয়সী ছেলে, তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এর প্রায় ঘণ্টাখানেক পর ল্যান্ডসডেল থেকে ৯১১’তে পুলিশের কাছে কল আসে। সেখানে একটি বাড়িতে দু’জন নারীকে মৃত, গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পায় পুলিশ। এরা হলেন স্টোনের সাবেক শাশুড়ি ও সাবেক নানী শাশুড়ি। এর আধঘণ্টা পর ৯১১’তে আরেকটি কল পায় পুলিশ। ওই কলের সূত্র ধরে লোয়ার স্যালফোর্ডের একটি বাড়িতে স্টোনের সাবেক স্ত্রী নিকোলের (৩৩) গুলিবিদ্ধ লাশ পায় পুলিশ। এক সংবাদ সম্মেলনে পেনাসালভানিয়ার মন্টগোমারি জেলার প্রধান আইন কর্মকর্তা রিসা ভেটরি ফেরম্যান জানিয়েছেন, অভিযান চলাকালে পেন্সবার্গের বাসিন্দাদের দরজা বন্ধ করে বাসায় অবস্থান করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। ফেরম্যান বলেছেন, আমরা যখন এখানে দাঁড়িয়ে আছি, তখন জানি না সে (স্টোন) কোথায় আছে। ঘটনার আগে সাবেক স্ত্রীর বাড়ি থেকে নিজের দুই কন্যাকে সরিয়ে নিয়েছিরেন স্টোন। প্রতিবেশীর বাড়িতে রাখা ওই দুই কন্যা নিরাপদ আছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

ইরাক থেকে ফিরে আসার পর থেকে স্টোন ‘পোস্ট-ট্রমাট্যিক স্ট্রেস ডিসঅর্ডার’ এ ভুগছিলেন বলে জানিয়েছে স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো। ফেরম্যানের দফতর থেকে নিজেদের ফেসবুক পেইজে বলা হয়েছে, স্টোন সশস্ত্র ও বিপজ্জনক হতে পারেন।

-ওয়েবসাইট