২৩ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

যুদ্ধাপরাধী বিচার ॥ দুই ট্রাইব্যুনালে বিচার কার্যক্রম দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে


বিকাশ দত্ত ॥ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে অভিযুক্তদের দুটি ট্রাইব্যুনালে বিচারিক কার্যক্রম দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। ১২টি মামলার মধ্যে কায়সার-সুবহান-আজাহারুল-জব্বারের চারটি মামলা রায় ঘোষণার জন্য অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখা হয়েছে। দুটি মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ চলছে। অন্য ৮টি মামলার বিভিন্ন আদেশসহ অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দিন নির্ধারণ রয়েছে। এর মধ্যে বাগেরহাটের কসাই সিরাজসহ তিন রাজাকার ও কিশোরগঞ্জের পলাতক রাজাকার কমান্ডার হাসান আলীর বিরুদ্ধে প্রসিকিউশনের সাক্ষীদের জবানবন্দী চলছে। পটুয়াখালীর ফোরকান মল্লিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি শেষ হয়েছে। আদেশের জন্য ১৮ ডিসেম্বর দিন ধার্য করা হয়েছে। জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা ও যশোরের জামায়াতের সাবেক সংসদ সদস্য সাখাওয়াত হোসেনের বিরুদ্ধে প্রসিকিউশনকে ৩০ ডিসেম্বর মধ্যে তদন্তের অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। নেত্রকোনার মুসলীম লীগ নেতা আতাউর রহমান ননি (৬২) ও নেজামে ইসলামের ওবায়দুল হক তাহেরের (৬৪) বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নিয়েছে, অভিযোগ গঠনের শুনানির জন্য ৭ জানুয়ারি দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। অন্যদিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের মাহিদুর রহমান ও আফসার হোসেন চুটুর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য ১২ জানুয়ারি দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ ও ২ এ আদেশগুলো প্রদান করেছেন।

প্রসিকিউটর হৃষিকেশ সাহা জনকণ্ঠকে বলেছেন, বর্তমানে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ ও ২ এ মোট চারটি মামলার রায় ঘোষণার জন্য অপেক্ষমাণ রয়েছে। আমি আশা করছি, বিচারিক কার্যক্রম শেষে যেসব মামলার রায় ঘোষণার জন্য অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখা হয়েছে সে মামলাগুলোর রায় শীঘ্রই প্রকাশ করা হতে পারে। বর্তমানে ট্রাইব্যুনালে দুটি মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ চলছে। অন্যান্য মামলাগুলোও দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। তিনি বলেন, আরও নতুন মামলা আসার সম্ভাবনা রয়েছে। সেদিক দিয়ে দুটি ট্রাইব্যুনালে এখন আটটি মামলার বিচার কাজ চলছে।

তদন্ত সংস্থার সমন্বয়ক সানাউল হক বলেছেন, তদন্ত সংস্থার কর্মকর্তাবৃন্দ অভিযুক্ত আসামিদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে যাচ্ছে। আশা করছি চলতি মাসে আরও কিছু মামলার চূড়ান্ত রিপোর্ট প্রদান করতে পারবো। অন্যদিকে প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ জানিয়েছেন, চারটি মামলার বিচারিক কার্যক্রম শেষ হয়েছে এখন রায় হবে। যে কোন দিন এ রায় ঘোষণা হতে পারে। আমাদের দায়িত্ব মামলার আসামিপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে ধরা। আমরা অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ করতে সমর্থ হয়েছি। এখন রায় প্রদান করবেন ট্রাইব্যুনাল। ট্রাইব্যুনাল তার সময়মতো রায় প্রদান করবেন।