২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

অমুসলিমদের যৌনদাসী করা যাবে! আইএসের ফতোয়া


অমুসলিম নারী ও শিশুদের দাস হিসেবে ব্যবহার ও তাদের সঙ্গে যৌনসঙ্গম করার বিষয়টি সমর্থন করেছে জিহাদী জঙ্গী গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)।

এমনকি অপ্রাপ্ত বয়স্ক মেয়েশিশুদের এ কাজে ব্যবহার করা যাবে বলে মত দিয়েছে গোষ্ঠীটি।

“প্রশ্নোত্তরে নারী দাসী ও তাদের স্বাধীনতা” নামের আইএসের একটি পুস্তিকায় এসব কথা বলা হয়েছে বলে সিএনএনের বরাত দিয়ে রবিবার জানিয়েছে বার্তা সংস্থা আইএএনএস।

শনিবার সিএনএন জানিয়েছে, শুক্রবার সূর্যাস্তের পর ইরাকের আইএস অধিকৃত শহর মসুলের বাসিন্দাদের মধ্যে ওই পুস্তিকাটি বিতরণ করেছে আইএস।

ওই পুস্তিকায় অমুসলিম নারী ও শিশুদের বিক্রি করা যাবে এবং উপহার হিসেবে অন্যদের দেয়া যাবে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।

আটক করা নারীরা “অবিশ্বাসী” হলে তাদের আটক অনুমোদনযোগ্য বলে পুস্তিকায় দাবি করা হয়েছে। এতে আরো বলা হয়েছে, স্ত্রী দাসীরা হলো নারী যাদের মুসলিমরা শত্রুদের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়েছে। পুস্তিকার অধিকাংশজুড়েই নারী দাসীদের সঙ্গে যৌনসঙ্গম করার ক্ষেতে আইএসের নীতির বিষয়ে বলা হয়েছে।

এছাড়া পুস্তিকায় আইএসের অন্যান্য আইন সম্পর্কেও বলা হয়েছে এবং বন্দীদের ওপর বন্দীকর্তার পূর্ণ কর্তৃত্ব আছে বলে পরিষ্কার করা হয়েছে। আইএসের ওই পুস্তিকার বিষয়ে মসুলের এক বাসিন্দা বলেছেন, “অধিকাংশই (আমাদের) মর্মাহত, কিন্তু (আমরা) এ বিষয়ে তেমন কিছু করতে পারছি না।”

অনেকেই সিরিয়া ও ইরাকে আইএসের নির্মম অভিযানের সময় গোষ্ঠীটির সদস্যদের বিরুদ্ধে অপহরণ, বিক্রয় ও ধর্ষণের অভিযোগ করেছেন বলে সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। আইএসের চাপিয়ে দেয়া শরিয়া আইন মেনে নেয়নি বলে অনেক বেসামরিক লোকজনকে গোষ্ঠীটির সদস্যরা হত্যা করেছে, এমন অভিযোগ প্রায়ই পাওয়া যায়।

সৃষ্টিকর্তার নামে পশ্চিমা সাংবাদিক ও ত্রাণকর্মীদের শিরñেদের বিষয়টি আগেই সমর্থন করেছিল আইএস। তারপরও মসুলে বিতরণ করা পুস্তিকাটির মতো নিজেদের কার্যকলাপের পক্ষে যুক্তি ও ব্যাখ্যা দিয়ে পুস্তিকা প্রকাশ ও বিতরণ বিরল বিষয় বলে উল্লেখ করেছে সিএনএন।