২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

আগামী বছর দেশে ফিরতে চান মালালা


আগামী বছর দেশে ফেরার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন পাকিস্তানের নোবেল জয়ী মালালা ইউসুফজাই (১৭)। বুধবার ডন নিউজকে দেয়া এক বিশেষ সাক্ষাতকারে তিনি এ কথা জানান। মালালা বলেন, আল্লাহ চাইলে আমি শীঘ্রই দেশে ফিরব। আগামী বছর আমার জিসিএসই পরীক্ষা শেষ হবে। এর পরই আমি দেশে যাব।

মালালা তার দেশে মাধ্যমিক পর্যায়ের শিশুদের শিক্ষায় নোবেল পুরস্কারের অর্থ ব্যয় করতে চান। তিনি এজন্য তার নিজ এলাকা সোয়াত ও সাংলায় অর্থ ব্যয়ের কার্যক্রম শুরু করতে আগামী বছর পাকিস্তান যাবেন। বুধবার নরওয়ের রাজধানী অসলোতে পাকিস্তানের মালালা ইউসুফজাই যৌথভাবে ভারতের কৈলাশ সত্যার্থীর (৬০) সঙ্গে নোবেল শান্তি পুরস্কার গ্রহণ করেন। নোবেল পুরস্কার প্রাপ্তদের মধ্যে মালালাই হলেন সবচেয়ে কমবয়সী। পাকিস্তানে মেয়েদের শিক্ষায় সোচ্চার ভূমিকা পালনকালে সোয়াত উপত্যকায় ২০১২ সালের অক্টোবরে তালেবানদের গুলিতে মালালা মারাত্মকভাবে আহত হন। তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে ইংল্যান্ডে নিয়ে যাওয়া হয় উন্নত চিকিৎসার জন্য। বামিংহামে এক জটিল অস্ত্রোপচারের পর তিনি ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে ওঠেন। তার পরিবারকে ইংল্যান্ডে নাগরিকত্ব দিয়ে তাকে পুনর্র্বাসন করা হয়, যাতে তার শিক্ষা কার্যক্রম ও শিশু অধিকার আন্দোলনের কাজ সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত করতে পারেন।

এদিকে এএফপি জানায়, মালালা তার রক্তাক্ত পোশাক দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন। তালেবানের গুলিতে আহতের সময় তার গায়ে যে পোশাক ছিল তা দিয়ে প্রথমবারের মতো প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা হয়েছে। মালালা ও কৈলাশ সত্যার্থী বৃহস্পতিবার যৌথভাবে এ প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন। প্রদর্শনীতে মালালার মাথায় তালেবানদের গুলি করার সময় পরা রক্তাক্ত স্কুল ড্রেসও ছিল।

পাশাপাশি প্রদর্শনীতে মালালার রক্তাক্ত স্কার্ফ, জ্যাকেট ও স্যালোয়ার একটি কাঁচের বাক্সে প্রদর্শন করা হয়। ভারতের কৈলাশ সত্যার্থী মালালাকে কন্যাতুল্য বলে তার কপালে চুমু দেন। এই প্রথম মালালার ব্যবহৃত বিভিন্ন জিনিস জনসাধারণের সামনে প্রদর্শন করা হলো। ভারতের সত্যার্থী দীর্ঘ ৩৫ বছর শিশুশ্রমের বিরুদ্ধে আন্দোলন করে হাজার হাজার শিশুকে মুক্ত করেন। তিনি মালালাকে তার দুঃসাহসী কর্মকা-েন্ডর জন্য সাধুবাদ দেন।