২৪ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

আদর্শের লড়াই ও রাজনৈতিক দর্শনের একখ- ভূমি


‘বাংলাদেশের অভ্যুদয় ও গণতন্ত্রের পথপরিক্রমা’ গ্রন্থটির ভূমিকা লিখতে গিয়ে নুরুল ইসলাম নাহিদ তাঁর লেখার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য সম্পর্কে বলেছেনÑ ‘...লেখার পেছনে একটা লক্ষ্য রয়েছে, যা পাঠকের কাছে স্পষ্ট হবে সহজেই। সেই লক্ষ্য হলো সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সমস্যা ও অসঙ্গতিগুলো তুলে ধরা এবং দেশ ও জাতির প্রকৃত কল্যাণ ও মুক্তি অর্জনের স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য রাজনীতি, আর্থ-সামাজিক জীবন, শিক্ষা প্রভৃতি ক্ষেত্রে একটা উন্নত মান অর্জন করা।’ নুরুল ইসলাম নাহিদের এ সংকলনটিতে ৪৫টি নিবন্ধ ও আত্মস্মৃতিমন্থিত রচনা জায়গা করে নিয়েছে, তবে এ সব নিবন্ধের মাধ্যমেই যে লেখক তাঁর রাজনৈতিক দর্শন, ধ্যান-ধারণার বহির্প্রকাশ, অন্যায়ের বিরুদ্ধে শব্দের প্রতিবাদে শক্ত অবস্থান নিতে সক্ষম হয়েছেন, তা প্রতিটি লেখাতেই স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। বইয়ের প্রথম কয়েকটি নিবন্ধ জাতির জনককে নিয়ে লেখা, বোধকরি বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে নিবিড় সম্পর্কের কারণেই লেখাগুলো তরতাজা, চেতনাহৃদ্ধ হয়ে উঠেছে। নিবন্ধগুলোর স্থানে স্থানে ব্যবহৃত হয়েছে বঙ্গবন্ধুর উক্তি, যার দরুণ নিবন্ধে সবলীলভাবে উঠে এসেছে শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন, সাধনা, আদর্শ, মহাত্মতার স্বচ্ছ প্রতিচ্ছবি। পাশাপাশি উঠে এসেছে লেখকের ছাত্র রাজনীতি, ব্যক্তি ও জীবনদর্শন। বঙ্গবন্ধুকে মূল্যায়ন করতে গিয়ে লেখক ‘বঙ্গবন্ধু আদর্শ লক্ষ্য ও সংগ্রাম’ নিবন্ধে লিখেছেনÑ ‘বঙ্গবন্ধু শুধুমাত্র আমাদের হাজার বছরের ইতিহাসের সবচেয়ে গৌরবময় অধ্যায়ের মহানায়কই নন, তিনি আমাদের ভবিষ্যতেরও আলোকবর্তিকা।’

‘বাংলাদেশের অভ্যুদয় ও গণতন্ত্রের পথ পরিক্রমা’র বেশিরভাগ নিবন্ধই ধারণ করে আছে তৎকালের গুরুত্বপূর্ণ সব সময়কে। রাষ্ট্রযন্ত্র পরিচালনায় অসঙ্গতি দেখা মাত্র নুরুল ইসলাম নাহিদ কলম ধরেছেন, দ্ব্যর্থহীনভাবে লিখেছেন শিক্ষা ব্যবস্থার অব্যস্থাপনা, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি, নষ্ট ছাত্র রাজনীতি নিয়ে। তিনি যা লিখেছেন দ্বিধাহীন ভাষায় লিখেছেনÑ আর এখানেই একজন লেখকের স্বার্থকতা। একই সঙ্গে অন্যায়, অবিচার নিয়ে যেমন তাঁর কলম দৌড়ে বেড়িয়েছে, তেমনি কলমে এসেছে চেতনাসঞ্চারী ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু, আদর্শ রাজনীতি নিয়ে বৈচিত্র্যময় মননশীল রচনা।

আলোচ্য গ্রন্থে ‘রাজনীতির গৌরবময় ঐতিহ্য এবং সুস্থধারা পুনরুদ্ধারের সংগ্রাম’ শীর্ষক নিবন্ধটিকে এই গ্রন্থের প্রাণ বলা চলে। এ নিবন্ধে লেখক রাজনীতি, রাজনীতির লক্ষ্য, উদ্দেশ্য, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, নেতৃত্ব, দুর্বৃত্তায়ন নিয়ে সূক্ষ্মভাবে পাজ্ঞোচিত বিশ্লেষণ করেছেন। ফলে লেখাটি সেই সময়ে যেমন নবীন-প্রবীণ রাজনৈতিক ব্যক্তিদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ও দিকনির্দেশনামূলক ছিল, তেমনি বর্তমানেও রচনাটি তার উপযোগিতা হারায়নি।

৩২০ পৃষ্ঠার এ বইটিতে স্থান পেয়েছে পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের কার্যক্রম, ২৫ মার্চ রাতের প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা, শিক্ষা দিবস, সত্তরের ঘূর্ণিঝড়, প্রকৃতি ও জলবায়ু, তুলনামূলক রাজনীতি সম্পর্কিত বিবিধ নিবন্ধ।

‘বাংলাদেশের অভ্যুদয় ও গণতন্ত্রের পথপরিক্রমা’র প্রচ্ছদ করেছেন দীপক রায়। প্রকাশিত হয়েছে ২০১০ সালের বইমেলায়। প্রকাশ করেছে হাক্কানী পাবলিশার্স। বইটির মূল্য ধরা হয়েছে ৪০০ টাকা।

মুহাম্মদ ফরিদ হাসান