১৮ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট ৪ ঘন্টা পূর্বে  
Login   Register        
ADS

ফ্রান্সের জার্সিতে নাখোশ নাসরি


স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বিশ্বফুটবলের সেরা তারকাদের একজন সামির নাসরি। কিন্তু দুর্ভাগ্য ব্রাজিল বিশ্বকাপে ডাক পাননি তিনি। এর জন্য ফরাসী ফুটবলের অন্তঃকলহই দায়ী। আর সেই ক্ষোভ-হতাশার সীমাকে আটকাতে পারেননি তিনি। যে কারণে আন্তর্জাতিক ফুটবলকেই বিদায় বলে দিয়েছেন ম্যানচেস্টার সিটির এই এ্যাটাকিং মিডফিল্ডার। গত আগস্টে মাত্র ২৭ বছর বয়সেই আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় বলে দেন তিনি। দেশের হয়ে না খেলতে পারার সেই হতাশা এখনও খোঁজে ফিরে তাকে। তবে সামির নাসরি বলেছেন ফ্রান্সের জাতীয় দল কখনই তাকে সুখ দিতে পারেনি। এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘আমি আগেও বলেছি যে ফ্রান্সের জাতীয় দল আমাকে কখনই সুখ দিতে পারেনি।’ ২০০৭ সালে ফ্রান্সের জাতীয় দলে অভিষেক ঘটে সামির নাসরির। অসাধারণ পারফর্মেন্সের কারণে মাত্র ১৯ বছর বয়সেই নির্বাচকদের মন জয় করে নিয়েছিলেন তিনি। এই সময়ের মধ্যে ফ্রান্সের জার্সি পরে খেলেছেন ৪১ ম্যাচ। আর প্রতিপক্ষের বিপক্ষে পাঁচবার বল জড়ানোর কীর্তি দেখান তিনি। কিন্তু প্রতিভাবান এই মিডফিল্ডারের ক্যারিয়ার ছিল বিতর্কিত। ২০০৮ সালে ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে খেলার সময়ই দলের সিনিয়র খেলোয়াড়দের সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন তিনি। সেই সমস্যার সমাধান হলেও নিজেকে সংযত রাখতে পারেননি বেশি দিন। ২০১২ সালের ইউরো থেকে বাদ পড়ার পর আরও একবার নিজেকে বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দুতে নিয়ে আসেন নাসরি। এবার এক সাংবাদিকদে তিরস্কার করেন তিনি। এর শাস্তিও ভোগ করতে হয় তাকে। তিন ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ হন সামির নাসরি। শুধু সামির নাসরি নয়। ফরাসী দলে বিতর্কিত ঘটনার জন্ম দেয়া অনেক খেলোয়াড়ই রয়েছেন। যাদের মধ্যে দলের তারকা ফুটবলার ফ্রাঙ্ক রিবেরি ও করিম বেনজেমার নামটাও উল্লেখযোগ্য। এছাড়া ২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপেও বিতর্কিত ঘটনার জন্ম দিয়ে আলোচনায় উঠে আসে ফ্রান্স। জাতীয় দলকে বিদায় বললেও ইংলিশ জায়ান্ট ম্যানচেস্টার সিটির হয়ে এখনও খেলে যাচ্ছেন নাসরি। সেখানে তার পারফর্মেন্সও প্রশংসনীয়। তাহলে কী ক্লাব ফুটবলে খেলেই ক্যারিয়ার শেষ করে দেবেন তিনি। কখনই কী ফ্রান্সের জার্সিতে ফেরার সম্ভাবনা নেই তার? এমন প্রশ্ন উঠলে, সামির নাসরি জানান, দলে এমন কিছু লোক রয়েছে তারা যতদিন থাকতে ততদিন আর ফিরছেন না তিনি।

সর্বাধিক পঠিত:
পাতা থেকে: