১৫ ডিসেম্বর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

যুবলীগ নেতা ও অটো চালকসহ চার খুন


জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ জামালপুরে সিএনজি চালককে দুর্র্বৃত্তরা, ভোলায় ছোট ভাইকে পিটিয়ে বড় ভাই, পটুয়াখালীতে যুবলীগ নেতাকে দুর্বৃত্তরা ও কেরানীগঞ্জে স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যা করেছে পাষ- স্বামী। খবর নিজস্ব সংবাদদাতা ও সংবাদদাতাদের পাঠানোÑ

জামালপুর ॥ জেলায় খড়খড়িয়া গ্রামে নজরুল ইসলাম (৪৫) নামে এক সিএনজি চালিত অটোরিকশা চালক দুর্বৃত্তের হাতে খুন হয়েছে। এ হত্যাকা-ের প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ জনতা জামালপুর-ময়মনসিংহ-ঢাকা সড়কপথ দুই ঘণ্টা অবরোধ করে রাখে। শুক্রবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত নজরুল জামালপুর সদর উপজেলার রানাগাছা ইউনিয়নের খড়খড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা। তিনি ওই গ্রামের মৃত ফকির মাহমুদের ছেলে।

ভোলা ॥ সদর উপজেলার পূর্ব ইলিশা ইউনিয়নের গুপ্ত মুন্সি গ্রামে শনিবার সকাল ১০টার দিকে জমিজমা বিরোধের জের ধরে দুই ভাইয়ের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ সময় ছোট ভাই বাবুল পালোয়ানকে (৩৮) পিটিয়ে হত্যা করা হয়। তবে পুলিশ এ ঘটনায় কাউকে আটক করতে পারেনি।

পটুয়াখালী ॥ সদর উপজেলার মাদারবুনিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও ইউনিয়ন পরিষদ মেম্বার মোঃ নাসির হাওলাদার দুর্বৃত্তদের হাতে খুন হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যার পর (৬.১৫ মিনিটে) বসাক বাজার থেকে মোহাম্মাদপুরের নিজের বাড়িতে ফেরার পথে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তদের কোপে তিনি খুন হন। নিহত নাসির হাওলাদারের মেয়ে লিপি আক্তার বাদী হয়ে পটুয়াখালী সদর থানায় দুজন অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। তবে কেউ গ্রেফতার হয়নি।

কেরানীগঞ্জ ॥ পারিবারিক কলহের জের ধরে অনামিকা আক্তার রুনা (২৪) নামের এক সন্তানের জননীকে শ্বাসরোধ হত্যা করেছে স্বামী। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার রাতে চুনকুটিয়া পশ্চিম পাড়া এলাকায়। ঘাতক স্বামীর নাম জাহিরুল ইসলাম খন্দকারকে আটক করেছে পুলিশ। তিনি কালীগঞ্জ এলাকার তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিক।

ঝালকাঠিতে আওয়ামী লীগ অফিস ভাংচুর

নিজস্ব সংবাদদাতা, ঝালকাঠি, ৬ ডিসেম্বর ॥ জেলার শেখেরহাট ইউনিয়নের গুয়াটন বাজারে আওয়ামী লীগ অফিস ভাংচুরের ঘটনায় আঃ খালেক (৫০) নামে এক ব্যক্তি গ্রেফতার হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় একদল বিএনপি সমর্থক আওয়ামী লীগ অফিস ভাংচুর করে। এ ব্যাপারে রাতেই স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের পক্ষ থেকে ঝালকাঠি থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। আঃ খালেক গুয়াটন গ্রামের বাসিন্দা।

জরিমানা করে ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা

নিজম্ব সংবাদদাতা, মাদারীপুর, ৬ ডিসেম্বর ॥ মাদারীপুরে ধর্ষণের শিকার ১৫ বছরের এক তরুণী অন্তঃস্বত্তা হয়েছে। বিষয়টি ধামাচাপা দিতে প্রভাবশালী একটি মহল উঠে পড়ে লেগেছে। স্থানীয়রা সালিশীতে ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা করে মীমাংসার চেষ্টা করছে বলেও ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগ।

ওই তরুণীর পরিবার, অভিযোগপত্র ও মামলার বিবরণীতে জানা যায়, সদর উপজেলার ছয়না গ্রামের আইয়ুব আলী আকনের ছেলে রকমান আকন একই গ্রামের ওই তরুণীকে দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। প্রেমে ব্যর্থ হয়ে রকমান ওই তরুণীকে কু-প্রস্তাব দেয়। এতেও ব্যর্থ হলে গত ১৫ জুলাই রাতে তরুণীকে বাড়ির পাশের একটি ভিটায় ডেকে নিয়ে যায়। এরপর কোরান হাদিসকে সাক্ষী রেখে বিয়ে করার প্রলোভন দেখায়। পরে ওই তরুণীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। লোকলজ্জার ভয়ে বিষয়টি পরিবারের লোকজনকে না জানালে এক পর্যায়ে সে অন্তঃস্বত্তা হয়ে পড়ে। গত ২৭ নবেম্বর বিকেলে বিষয়টি ধামাচাপা দিতে ওই তরুণীর বাড়িতে রকমানের ভাই চন্দন আকন ও তার পিতা আইয়ুব আলী আকন যান।