২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

আগামী ২২ জানুয়ারি অভিযোগপত্র দাখিলের নির্দেশ দিয়েছে আদালত


স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ ॥ নারায়ণগঞ্জে ৭ খুনের ঘটনায় র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তাসহ ২৪ জনকে নিয়মিত হাজিরা শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। সোমবার সকালে কঠোর নিরাপত্তায় নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এইচএম শফিকুল ইসলামের আদালতে আসামিদের পৃথক দুটি হত্যা মামলায় হাজির করা হয়। আদালত শুনানি শেষে তাদের কারাগারে প্রেরণ করেন। একই সঙ্গে আদালত ২২ জানুয়ারি ওই মামলার অভিযোগপত্র দাখিলের জন্য মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছে।

আদালতে জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন অভিযোগ করেন, মামলার আসামিদের মধ্যে র‌্যাবের সাবেক তিন কর্মকর্তা ও তাদের ঘনিষ্ঠ কয়েক সহযোগীকে হাতকড়া পরানো ছাড়াই পুলিশ আদালতে হাজির করেছে। অন্য আসামিদের হাতকড়া পরানো হয়েছে। ২৪ আসামির প্রত্যেককে হাতকড়া পরানোর ক্ষেত্রে পুলিশ বৈষম্য করেছে। এ ব্যাপারে তিনি আদালতের দৃষ্টি আকর্ষণ করে নির্দেশনা প্রার্থনা করেন। আদালত আগামী ২২ জানুয়ারি মামলার পরবর্তী শুনানির দিন এ বিষয়ে নির্দেশনা দেবেন বলে জানায়।

জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন আরও জানান, আমরা আদালতে বলেছি, সাতজনকে অপহরণের পর খুনের ঘটনার সাত মাস অতিবাহিত হলেও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এখনও আদালতে

অভিযোগপত্র দেয়নি। আমরা আদালতে এই বিষয়ে আবেদন জানালে শুনানি শেষে আদালত আগামী ২২ জানুয়ারি এই মামলায় অভিযোগপত্র দাখিল করার জন্য মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি আরও জানান, এর আগে গত অক্টোবর মাসে নির্ধারিত হাজিরার দিনে র‌্যাবের সাবেক কর্মকর্তা তারেক সাঈদকে হাজির না করায় জেল কর্তৃপক্ষকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছিলেন আদালত। সেটির জবাবে জেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, অসুস্থতার কারণে তাকে হাজির করা সম্ভব হয়নি। তবে আমরা এই বিষয়ে বলেছি, এটা গ্রহণযোগ্য কোন কারণ হতে পারে না।

সাখাওয়াত হোসেন আরও জানান, এখন পর্যন্ত এ মামলার এজহারভুক্ত কোন আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। ইতিমধ্যে মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেন ভারতে গ্রেফতার হলেও তাকে দেশে ফেরত আনা হয়নি। নূর হোসেনকে দেশে আনা হলে অনেক রাঘব-বোয়ালের নাম বেরিয়ে আসবে। এ কারণে সরকার তাকে দেশে ফেরত আনছে না। অবিলম্বে নূর হোসেনকে দেশে ফিরিয়ে আনার দাবি জানান তিনি।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: