২২ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

সাতক্ষীরা সীমান্তে লাথিতে বিজিবি কমান্ডার নিহত


স্টাফ রিপোর্টার. সাতক্ষীরা ॥ সাতক্ষীরার লক্ষীদাঁড়ি সীমান্তে চোরাচালানি পণ্য আটকের ঘটনাকে কেন্দ্র করে পলাশ নামের কথিত এক সাংবাদিকের হামলায় ও আঘাতে বিজিবির ভোমরা কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার নজরুল ইসলাম (৫৫) নিহত হয়েছেন। নিহতের বাড়ি রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলায়। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে চোরাচালানি পণ্য আটক করা নিয়ে এই হামলার ঘটনা ঘটে বলে বিজিবির ৩৮ ব্যাটালিয়ন সুত্রে জানা গেছে। বিজিবির খুলনা সেক্টর কমান্ডার কর্নেল খলিলুর রহমান কথিত সাংবাদিকের আঘাতের কারণে বিজিবি সুবেদারের মৃত্যু হয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানান। সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম রহমান বিজিবি সুবেদার নিহত হওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে বৃহস্পতিবার বিকেলে জনকণ্ঠকে বলেন, নিহতের ময়নাতদন্ত হয়েছে। তাঁর শরীরের অ-কোষে ও মাথায় আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। তবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিজিবির পক্ষ থেকে থানায় কোন মামলা বা অভিযোগ দেয়া হযনি।

বিজিবি সূত্র জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার সকালে সীমান্তে টহল দেয়ার সময় মাহমুদপুর গ্রামের জনৈক পলাশ বিজিবির সৈনিকের সঙ্গে কথা বলতে থাকে। এ সময় কয়েকজন চোরাচালানি রসুন পাচারের চেষ্টা করলে বিজিবি সদস্যরা বাধা দেয়। এ সময় উক্ত পলাশ মোবাইলে ছবি তুললে বিজিবি সদস্যরা তাঁর পরিচয় জানতে চাইলে সে নিজেকে ক্রাইম বার্তার সাংবাদিক পরিচয় দেয়। বিজিবি সদস্যরা মোবাইলে কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার নজরুলকে ডেকে আনার পর সুবেদার কথিত সাংবাদিকের পরিচয়পত্র দেখতে চান। এক পর্যায়ে তাকে বিওপিতে চা খাওয়ার আমন্ত্রণ জানানো হয়। পলাশের আচরণ সন্দেহজনক হলে বিজিবি সদস্যরা তার শরীর তল্লাশি শুরু করলে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে পলাশ সুবেদার নজরুলের অ-কোষে লাথি মারে এবং বুকে আঘাত করে। এতে তিনি গুরুতর আহত হয়ে মাটিতে পড়ে যান। তাঁকে দ্রুত সাতক্ষীরা হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় বিজিবি সদস্যরা পলাশ ও রনি নামের দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে। আটকের সময় কথিত সাংবাদিকের পকেট থেকে এক বোতল মদ ও ১ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়।

সম্পর্কিত:
পাতা থেকে: