২০ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

স্ত্রীর দাবি নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দর কর্মকর্তার বাড়িতে এক সন্তানের জননীর অবস্থ


নিজস্ব সংবাদদাতা, পাবনা, ৫ নবেম্বর ॥ ভাঙ্গুড়া উপজেলার অষ্টমনিষা গ্রামে স্ত্রীর দাবিতে চট্টগ্রাম বন্দরে কর্মরত শ্যাম পালের বাড়িতে স্বামী পরিত্যক্ত নারী সন্তান নিয়ে মঙ্গলবার দুপুরে অবস্থান নেয়। এ সময় এলাকার কৌতূহলী মানুষ ছেলের বাড়িতে ভিড় জমালে ইউপি চেয়ারম্যান ওই মহিলাকে সেখান থেকে সরিয়ে তার বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। এলাকাবাসী জানিয়েছে, মঙ্গলবার দুপুরে অষ্টমনিষা বাজার এলাকায় মৃত শম্ভুনাথ পালের বাড়িতে পাবনা সদর উপজেলার হেমায়েতপুর ইউনিয়নের বিলভাদুরি গ্রামের মৃত ফটিক প্রামাণিকের স্বামী পরিত্যক্ত কন্যা রেনু খাতুন (৩৮) হাজির হন। সম্ভুনাথ পালের ছেলে চট্টগ্রাম বন্দরে এক্সিকিউটিভ পদে কর্মরত শ্যামকুমার পাল (২৬) তাকে গোপনে বিয়ে করেছে বলে দাবি করে। মহিলাটি কোর্টের এফিডেভিটের ফটোকপি দেখায়। এ সময় শ্যাম বাড়ি না থাকায় তার বাড়ির লোকজন বিষয়টি ইউপি চেয়ারম্যানকে জানায়। ইউপি চেয়ারম্যান মহিলাটিকে ওই বাড়ি থেকে ডেকে এনে আইনের আশ্রয় নিতে পরামর্শ দিয়ে তাকে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। রেনু খাতুন জানান, শ্যাম পাবনা এডওয়ার্ড কলেজে পড়ার সময় তার ম্যাচে সে রাঁধুনির কাজ করত। এ সময় শ্যামের সঙ্গে তার সম্পর্ক হয়। তাদের গোপনে বিয়েও হয়। ৪ বছর আগে শ্যাম লেখাপড়া শেষে চট্টগ্রাম বন্দরে এক্সিকিউটিভ পদে চাকরি পায়। শ্যামের সঙ্গে সেও চট্টগ্রামে স্বামী-স্ত্রীর মতো বসবাস করে। এ অবস্থায় চাটমোহর উপজেলার নিমাইচরা ইউনিয়নের গৌরিপুর পালপাড়ার এক মেয়ের সঙ্গে শ্যামের বিয়ে ঠিক হওয়ার খবর পেয়ে রেনু খাতুন শ্যামের বাড়িতে হাজির হয়। এ ব্যাপারে শ্যামের সঙ্গে কাথা বলার চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি। শ্যামের ভাই স্কুলশিক্ষক সঞ্জয় পাল ঘটনাটি সম্পূর্ণ মিথ্যা দাবি করে বলেন, শ্যামকে ফাঁসানোর জন্য ওই মহিলা ছলচাতুরির আশ্রয় নিচ্ছে।