২১ অক্টোবর ২০১৭,   ঢাকা, বাংলাদেশ   শেষ আপডেট এই মাত্র  
Login   Register        
ADS

ইবোলা টিকা পরীক্ষা ॥ বছরের পর বছর থেকে যায় হিমাগারে


কানাডা ও যুক্তরাষ্ট্রের বিদেশীরা বলেছেন, তারা প্রায় এক দশক আগে একটি টিকা আবিষ্কার করেছিলেন যা ইবোলা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে ইঁদুরকে রক্ষা করতে সক্ষম ১শ’ শতাংশ। এর ফল বহুল প্রচারিত একটি সাময়িকীতে প্রকাশিত হয় এবং স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা এগুলোকে বিস্ময়কর বলে অভিহিত করেন। গবেষকরা বলেন, মানুষের দেহে এর পরীক্ষা দু’বছরের মধ্যে শুরু হতে পারত এবং ২০১০ বা ২০১১-এর আগেই ওষুধটি অনুমোদনের জন্য প্রস্তুত রাখার সম্ভাবনা ছিল। খবর নিউইয়র্ক টাইমস অনলাইনের।

কিন্তু তা হয়নি। এ টিকা হিমাগারে তুলে রাখা হয়। মানবদেহে এটির মৌলিক পরীক্ষার জন্য প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে এমন এক সময় যখন পশ্চিম আফ্রিকায় ইবোলা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে প্রায় ৫ হাজার মানুষ এবং রোগটি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে। ইবোলার প্রাদুর্ভাব কদাচিত সংঘটিত হয় এবং আংশিক কারণে ওষুধটির অগ্রগতি থেমে যায়। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা এ কথাও স্বীকার করেছেন যে, কোন প্রতিশ্রুতিশীল রোগীর ওপর পরীক্ষা অব্যাহত না রাখতে পারার কারণে সংশ্লিষ্ট ওষুধটি, উৎপাদনে ব্যাপক ব্যর্থতা হয়েছে। অধিকাংশ ওষুধ কোম্পানি ওষুধটি উৎপাদনে প্রয়োজনীয় ব্যাপক অর্থ ব্যয়ে অনীহাবোধ করেছে। পশ্চিম আফ্রিকায় এখন রোগটির ক্রমবর্ধমান বিস্তার লাভ করায় এবং অন্যান্য অঞ্চলের জন্য এটা এক সম্ভাব্য হুমকি হয়ে দেখা দেয়ায় বিভিন্ন দেশের সরকার ও ত্রাণ সংস্থাগুলো তাদের উদ্যোগসমূহ প্রকাশ করা শুরু করেছে। এ ওষুধ ও টিকার পরীক্ষার জন্য এক অস্থিরতার সৃষ্টি হয়েছে এখন।

এক মার্কিন কর্মকর্তা বৃহস্পতিবার এক সাক্ষাতকারে বলেন, পশ্চিম আফ্রিকায় হাজার হাজার রোগী সংশ্লিষ্ট দুটি বিশাল সমীক্ষা শীঘ্র শুরু করার পরিকল্পনা রয়েছে। এ ব্যাপারে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা শুক্রবার বিস্তারিত জানাবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

পশ্চিম আফ্রিকায়

যাবে ২০১৫ তে

পশ্চিম আফ্রিকায় প্রাণঘাতী ইবোলা ভাইরাসের টিকার লাখ লাখ ডোজ ২০১৫ সালের মাঝামাঝি পাওয়া যেতে পারে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা শুক্রবার একথা জানিয়েছে। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে নতুন ইবোলা রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। মালিতে প্রথম ইবোলায় আক্রান্ত দুই বছর বয়সী শিশুটি স্থানীয় সময় শুক্রবার বিকেলে মারা গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের দুই নার্সকে ইবোলামুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। তাদের মধ্যে একজন নিনা ফাম নিজেকে সংক্রমণমুক্ত প্রমাণ করতে হোয়াইট হাউসে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাকে জড়িয়ে ধরেন। ডব্লিউএইচও বলেছে, ২০১৫ সালের প্রথমার্ধে টিকার কয়েক লাখ ডোজ পাওয়া যেতে পারে।